Category: Education

traffic jam paragraph | 5 best paragraph for traffic jam

traffic jam paragraph: Hello students. How are you? I am fine!! In this article I gonna share some best paragraph about traffic jam. Nowadays most of the students are facing problem to find out the best traffic jam paragraph.Thinks about them, I have collected 5 more traffic jam paragraphs from several classes.

Don’t be worry!!! In the next part of this article you can see those paragraphs. But before sharing our paragraph, do you know what is in this article?

  • Traffic jam paragraph for class 8
  • Traffic jam paragraph for class 9
  • For hsc
  • And for other some classes

 

Before I give you the paragraphs, let me make it clear that every paragraph is collected from a book. This paragraph is not made with my creativity.

traffic jam paragraph for class 8

Traffic jam paragraph for class 8
Traffic jam paragraph for class 8

TRAFFIC JAM refers to the blockade of buses, cars, trucks, rickshaws or other vehicles on the streets. It is a common affair in big cities and towns in our country. Several factors are responsible for this. Poor traffic system and the violation of traffic rules are the main causes of traffic jam. Most drivers do not obey the traffic rules. Many of them have the tendency to overtake others.

It creates traffic jam on roads. Rickshaws are also greatly responsible for this problem. The number of vehicles is increasing day by day. But most of our roads are still not broad enough to ensure free movement of the vehicles. Whatever may be the cause of traffic jam, it creates many problems for us. It snatches away our valuable time.

It wastes extra fuel. Office going people cannot attend their offices in time. The sick and dying patients cannot be easily moved to hospitals. The passing of time becomes unbearable in a traffic jam. None can move forward or backward.

Passengers are bound to stay against their will. However, this problem must be solved immediately. The roads should be spacious . Traffic rules should be imposed strictly . Moreover , we all should raise our patience and consciousness in this regard .

 

traffic jam paragraph for class 9

 

 

Traffic jam is a long line of vehicles that cannot move or that can only move very slowly because there is so much traffic on the road Traffic jam is a common affair in the big cities and towns. It is one of the major problems of modern time.

The causes of traffic jam are many. In proportion to our population roads have not increased. The roads are all the same. There are many unlicenced vehicles which should be brought under control.

The drivers are not willing to obey the traffic rules. They want to drive at their sweet will. Overtaking tendency also causes traffic jam. The number of traffic police is insufficient. At office time traffic jam is intolerable.

Sometimes traffic jam is so heavy that it blocks half a kilometre. It kills our valuable time and our work is hampered. It causes great sufferings to the ambulance carrying dying patients and the fire brigade vehicles. However, this problem can be solved by adopting some measures.

Well planned spacious roads should be constructed. One way movement of vehicles should be introduced. Traffic rules should be imposed strictly so that the drivers are bound to obey them. Sufficient traffic police should be posted on important points.

Unlicenced vehicles should be removed. After doing all these. things, we can hope to have a good traffic system for our easy and comfortable movement.

Read more Articles:

traffic jam paragraph for hsc

 Traffic jam paragraph for hsc
Traffic jam paragraph for hsc

Traffic Jam is a situation in which a long line of vehicles on a road have stopped moving or are moving very slowly. It is a great problem and nuisance for the modern society. Like other developing countries it is also one of the most irritating problems in Bangladesh.

Especially, it has taken a very serious shape in Dhaka City. It causes intolerable sufferings for urban people. The causes of traffic jam are many. The main cause of this problem is the narrowness of roads and the large number of vehicles.

The number of our vehicles has increased but our roads have not increased. The number of unlicensed vehicles are increasing day by day.

Many vehicles moving on the same road at the same time cause traffic jam. Besides, our traffic polices are not sincere. They often do not do their duties sincerely. The drivers are indifferent to traffic rules. They try to get more passengers stopping their buses here and there.

All these things together cause traffic jams. Moreover, too many rickshaws plying on the streets are another cause of traffic jam. At the time of traffic jam, everyone feels extremely bored as it kills our valuable time.

It causes great sufferings to the ambulance carrying dying patients and the fire brigade vehicles. However, this trouble should not be allowed to continue.

This problem can be solved by adopting some measures. Well-planned spacious roads should be constructed. Strict law should be imposed to control traffic jam.

Exemplary punishment should be given to the drivers who do not obey the traffic rules. Above all, the traffic authority should be more active to enforce traffic rules and maintain the discipline on the roads.

 

traffic jam paragraph for class 7 easy

 

Question: Write This (traffic jam paragraph 150 words) . Your writing should address the following questions.

  • What is Traffic Jam?
  • Where is it usually seen?
  • Why does it happen?
  •  How does it bring harm for the people as well as for the students?
  •  What measures should be taken to remove it?

Traffic Jam is a long queue of vehicles on a road. It is a great problem and nuisance for the modern society. It is usually seen in urban areas. Many vehicles moving on the same road at the same time cause traffic jam. Again, slow moving vehicles ply in front of the fast ones causes traffic jam. The drivers are also indifferent to traffic rules. They try to get more passengers stopping their buses here and there. Besides, our traffic police often do not do their duties honestly.

Moreover, our roads and streets are very narrow and insufficient. Traffic jam causes unspeakable sufferings for the people as well as for the students since it kills their valuable time. They can’t reach any place in time unless they start early. They also become sick sometimes.

However, to remove traffic jam, roads and streets should be increased and widened. The concerned authorities should enforce traffic rules strictly.

 

traffic jam paragraph bangladesh

You can use the paragraph bellow as:

  • traffic jam paragraph 250 words
  • traffic jam paragraph ssc
  • traffic jam paragraph for class 5
  • traffic jam paragraph 200 words

 

question: Write a paraghaph on Traffic Jam in 200 words ? And follow the question bellow to write this paragraph?

  • (a) What is traffic jam?
  • (b) What are the causes of traffic jam?
  • (c) Why is traffic jam occurred?
  • (d) What problems does traffic jam cause? (e)
  • How can traffic jam be controlled?

Traffic jam means the blockade of vehicles on roads. It is one of the major problems in our country. The causes of traffic jam are the violation of traffic rules, unplanned roads, huge number of rickshaws, unskilled drivers, untrained traffic police, narrow roads. Traffic jam is occurred because of the drivers’ not obeying the traffic rules. They want to drive at their sweet will.

Overtaking tendency also occurs traffic jam. The number of traffic police is not sufficient. The traffic jam causes the great sufferings of the officials, businessmen, workers, students, the ambulance carrying dying patients, the fire brigade vehicles and almost all the city living people.

Traffic jam can be controlled by adopting some measures like widening roads, training the drivers, increasing traffic police, making the people conscious.

Read more,

In conclusion

I hope I have been able to give you a complete overview of the traffic jam paragraph. If you like it, please comment. And don’t forget to share this article with your friends. If you wanna learn about birth registration , please connect with us by Jonmo Nibondhon Stay well.

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি

পৃথিবীর সব থেকে বড় দেশ কোনটি: পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ হচ্ছে রাশিয়া। তবে রাশিয়া হচ্ছে আয়তনের দিক থেকে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ। পরীক্ষার খাতায় যদি প্রশ্ন আসে , পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি? তাহলে এর উত্তর হিসেবে “রাশিয়া” লেখা শ্রেয় হবে।

প্রিয় পাঠক, আপনাদের সুবিধার্থে এবং পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি এ সম্পর্কে জানাতে আজকের এই আর্টিকেলটি বিস্তারিত ভাবে লেখা হয়েছে। আশা করি আপনারা শেষ পর্যন্ত পড়বেন।

এই কমন প্রশ্নটির উত্তর হয়তো আপনারা সবাই জানেন কিন্তু রাশিয়ার আয়তন কত, রাশিয়ার জনসংখ্যা কত, রাশিয়ার সামরিক সক্ষমতা, রাশিয়ার রাজনৈতিক অবস্থান ইত্যাদি সম্পর্কে খুব বেশি একটা জানেন না। তাই আমি সাধ্যমত বিভিন্ন রকম তথ্য উপস্থাপন করার চেষ্টা করছি। তবে আজকের পাঠে শুধুমাত্র রাশিয়া নিয়ে আলোচনা করা হবে।

 

আয়তনে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি?

পৃথিবীর সব থেকে বড় দেশ কোনটি: আয়তনের দিক থেকে পৃথিবীর সবচেয়ে বড়দেশ হচ্ছে রাশিয়া। রাশিয়ার বর্তমান আয়তন ১৭,০৭৫,৪০০ বর্গকিলোমিটার কিংবা 17.07 million km² । অথবা আমরা অন্য ভাবে বলতে পারি রাশিয়ার আয়তন হচ্ছে ৬,৫৯২,৮০০ বর্গমাইল কিংবা 6.5 million sq mi.

 পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি
Russia

সংক্ষেপে রাশিয়া সম্পর্কে কিছু কথা: রাশিয়ার অবস্থান হচ্ছে ইউরোপ এবং উত্তর এশিয়ায়। অর্থাৎ রাশিয়ার কিছু অংশ ইউরোপের মধ্যে পড়ে এবং কিছু অংশ উত্তর এশিয়ার মধ্যে পড়ে।

জনসংখ্যার দিক থেকে রাশিয়া বিশ্বের নবম স্থানে অবস্থান করছে। আর আমরা জানি বাংলাদেশ বিশ্বের অষ্টম জনবহুল দেশ। সুতরাং লোক সংখ্যার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ঠিক এক ধাপ পেছনে অবস্থান করছে রাশিয়া।

রাশিয়া বিশ্বের তৃতীয় সামরিক শক্তিধর রাষ্ট্র। কোন কোন ক্ষেত্রে রাশিয়া বিশ্বের দ্বিতীয় সামরিক শক্তিধর রাষ্ট্র। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পারমাণবিক বোমা সংরক্ষিত আছে রাশিয়ার কাছে।

রাশিয়াই পৃথিবীর একমাত্র দেশ যার সাথে অনেক দেশের সীমানা রয়েছে কিন্তু এতগুলো দেশের সাথে সীমানা অন্য কোন দেশের নেই। রাশিয়ার শিবা না বেশিরভাগ ইউরোপের দেশগুলোর সাথে রয়েছে।

রাশিয়া এক সময় সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতৃত্ব পর্যায়ে অবস্থান করেছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের বিশাল অস্ত্রভান্ডারের বেশিরভাগ পেয়েছে রাশিয়া।

রাশিয়া তেল সরবরাহ কারী দেশ হিসেবে অর্থনৈতিক বাজারে অনেক প্রভাব বিস্তার করে। রাশিয়ার অর্থনীতি পৃথিবীর বড় অর্থনীতির দেশগুলোর একটি।

রাশিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্টের নাম হচ্ছে ভ্লাদিমির পুতিন। ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়াতে বর্তমানে একনায়ক শাসনতন্ত্র চালু করেছে।

এই ছিল রাশিয়া সম্পর্কে সংক্ষেপে কিছু কথা। এখন আসে বিস্তারিত আলোচনা তে।

পড়তে থাকুন, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি?

Read more,

 

রাশিয়ার পতাকা এবং রাষ্ট্রীয় মর্যাদাপূর্ণ চিহ্ন

রাশিয়ার পতাকার তিনটি রং এ তৈরি করা হয়েছে। পতাকার ছবিটি নিম্নরূপ।

পৃথিবীর সব থেকে বড় দেশ কোনটি

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মর্যাদা পূর্ণ চিহ্ন নিম্নরূপ।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি

রাশিয়ার ভৌগলিক অবস্থান এবং সীমানা

রাশিয়ার অবস্থান: রাশিয়া পূর্ব ইউরোপে এবং উত্তর এশিয়াতে অবস্থিত পৃথিবীর বৃহত্তম একটি দেশ। আয়তনের দিক থেকে এটি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ হচ্ছে রাশিয়া।

রাশিয়ায় অর্ধ প্রেসিডেনশিয়াল ফেডারেল প্রজাতন্ত্র বিদ্যমান যেখানে সংবিধানের ৮৩ টি ফেডারেল বিষয় দ্বারা সংগঠিত।

রাশিয়ার উত্তর-পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পূর্ব দিকে সীমান্ত রয়েছে যেসব দেশের সাথে তারা যথাক্রমে, নরওয়ে ফিনল্যান্ড লাটভিয়া এস্তোনিয়া লিথুনিয়া , পোল্যান্ড, ইউক্রেন, বেলারুশ আজারবাইজান , কাজাকাস্তান, জর্জিয়া।

এছাড়াও দেশটির সীমান্ত রয়েছে চীন উত্তর কোরিয়া মঙ্গোলিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের সাথে। যুক্তরাষ্ট্রের সাথে রাশিয়ার সীমান্ত রয়েছে বেরিং প্রণালীর আলাস্কা এলাকায়।

এছাড়া রাশিয়ার সীমান্ত রয়েছে জাপানের সাথে। রাশিয়ার অখতস্ক সাগরের সাথে জাপানের সীমান্ত রয়েছে।

পূর্ব ইউরোপের অধিকাংশ এলাকা দখল করে আছে। পৃথিবীর মোট আবাদযোগ্য আয়তনের ৮ ভাগের এক ভাগ রাশিয়া দখল করে আছে অর্থাৎ এক অষ্টমাংশ স্থান।

রাশিয়া এমন একটি দেশ যার মরুভূমি রয়েছে। যদিওবা এই দেশটি শীতপ্রধান দেশ। রাশিয়ায় প্রায় চল্লিশটির ও বেশি ইউনেসকো স্বীকৃত জীবমণ্ডল সারাক্ষণ এলাকা রয়েছে।

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি

রাশিয়ার ১০ মাস(“সেপ্টেম্বর-মে) শৈত্যপ্রবাহ বিদ্যমান থাকে এবং ৮ মাস্ বরফাচ্ছন্ন (অক্টোবর-এপ্রিল) হয়ে থাকে।

বিশেষ করে রাশিয়ার সাইবেরিয়া অঞ্চল বছরের প্রায় পুরোটাই শীতল আবহাওয়া এবং শৈত্যপ্রবাহ চলমান থাকে।

তবে রাশিয়ার পশ্চিম দক্ষিণ অঞ্চলে কিছু মরুভূমি রয়েছে যেখানে তাপমাত্রা অনেক বেশি থাকে।

পড়তে থাকুন, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি

 

রাশিয়ার উৎপত্তি।

রাশিয়ার ইতিহাস বলতে গেলে ফিরে যেতে হবে তৃতীয় থেকে অষ্টম শতাব্দীর দিকে। অষ্টম শতাব্দীর পর্যন্ত রাশিয়ায় বিভিন্ন এলাকায় পূর্ব ইউরোপীয় স্লাভ সম্প্রদায় বসবাস করত। পরবর্তীতে ভারাঞ্জিয়ান যোদ্ধারা এবং তাদের বংশধররা এই রাশিয়া শাসন করেছিল এবং সেখান থেকেই এ দেশটির উত্থান শুরু হয়েছিল।

এরপর ৯৮৮ খ্রিস্টাব্দে রাশিয়া বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের অন্তর্গত হয়ে যায়। এর ফলে রাশিয়ায় খ্রিস্টান রীতি প্রচলিত শুরু হয়ে যায়।

যেহেতু রাশিয়ায় পরবর্তীকালে পূর্ব ইউরোপের স্লাভ সম্প্রদায়ের লোকেরা বসবাস করত তাই পরবর্তীতে স্লাভ সম্প্রদায় এর সংস্কৃতি এবং বাইজেন্টাইন সংস্কৃতির সংমিশ্রণ ঘটেছে যা পরবর্তীতে বহুকাল বিরাজমান ছিল ‌। যার দরুন রাশিয়া অনেক গুলো ছোট ছোট অঞ্চলে বিভক্ত হয়ে পড়ে।

এরপর ইতিহাসের সবচেয়ে দুধর্ষ এবং কুখ্যাত জাতি মঙ্গলরা রাশিয়া দখল করে বসে। এরপর রাশিয়া হয়ে যায় মোঙ্গলদের তথা যাযাবরদের বাসস্থান।

পরবর্তীতে মস্কোর গ্র্যান্ড ডিউক নামক একটি সম্প্রদায় যাযাবর দের হাত থেকে স্বাধীনতা লাভ করে এবং কিয়েভান রাশিয়ার রাজনীতি এবং সংস্কৃতিকে শাসন করে। এরাই মূলত রুশ জাতি হিসেবে পরিচিত।

এরপরে ১৯১৭ সালে রুশ বিপ্লবের পর এরা ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে এবং এখন রাশিয়ার ক্ষমতা চলে যায় সমাজতান্ত্রিক দলের হাতে। রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক দল রাশিয়ার সবগুলো অঞ্চল একসাথে আবদ্ধ করে গঠিত করে “সোভিয়েত ইউনিয়ন”

বলাবাহুল্য এই রুশদের সাম্রাজ্য পৃথিবীর সবচেয়ে বড় তিনটি সাম্রাজ্যের একটি সাম্রাজ্য ছিল।

এরপর সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৯১ সালে ভেঙে যায়। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে গিয়ে সবচেয়ে বড় এবং প্রধান যে দেশটি হয় সেটি হচ্ছে রাশিয়া অর্থাৎ রুশদের স্থান।

উল্লেখ্য সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে গিয়ে, রাশিয়া শহর 14 টি দেশের আবির্ভাব ঘটে যেগুলো সাম্রাজ্যের সময় রুশরা শাসন করতো।

 

রাশিয়ার জনসংখ্যা

২০১৫ সালের হিসাব অনুযায়ী রাশিয়ার বর্তমান জনসংখ্যা হচ্ছে ১৪,৩৯,৭৫,৯২৩ বা এক কথায় বললে এর সংখ্যা দাঁড়ায় ১৪ কোটি ৩৯ লাখ ৭৫ হাজার ৯২৯ জন।

রাশিয়ান জনসংখ্যার ঘনত্ব হচ্ছে প্রতি 1 বর্গ কিলোমিটারে প্রায় ৯ জন এবং অন্যভাবে বলা যায় রাশিয়ার জনসংখ্যার ঘনত্ব হচ্ছে প্রতি বর্গমাইলে প্রায় ২২ জন।

রাশিয়ার জনসংখ্যা ৮১ শতাংশ রুশ, ৩.৭ শতাংশ তাতার,১.৪ শতাংশ ইউক্রেনি, ১.১ শতাংশ বাশকির , ১.০ ‌ শতাংশ চুভাশ , ০.৮ শতাংশ চেচেন‌, ১১ শতাংশ অন্যান্য / অনির্ধারিত সম্প্রদায়।

পড়তে থাকুন, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি।

 

রাশিয়ার রাজনীতি

রাশিয়ার রাজনীতি মূলত আধা রাষ্ট্রপতি শাসিত দেশ। এখানে রাষ্ট্রপতি সর্বক্ষমতার মালিক এবং রাষ্ট্রপতি নিজেই প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত করেন।

রাশিয়াকে কয়েকটি অঞ্চলে বিভক্ত করে সেখানে প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত করা হয় যা রাষ্ট্রপতি নিজ হাতে করে থাকেন।

 

রাশিয়া অর্থনীতি

রাশিয়ার অর্থনীতিতে সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছিল সোভিয়েত ইউনিয়ন ভাঙ্গার পর। এ সময়ে রাশিয়াতে পুঁজিবাদী অর্থনীতি গড়ে ওঠে যা রাশিয়ার ভ্রমর অর্থনীতি হওয়ার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

কিন্তু বর্তমানে রাশিয়াতে মুক্তবাজার অর্থনীতি চালু রয়েছে। রাশিয়ার অর্থনীতির বই বস্তু হচ্ছে তেল-গ্যাস-কয়লা এবং বিভিন্ন প্রাকৃতিক সম্পদ। রাশিয়া বিশ্বের বৃহত্তম তেল গ্যাস রপ্তানিকারক দেশ গুলোর একটি। এর অর্থনীতি এসব খনিজ সম্পদের উপর নির্ভরশীল।

রাশিয়ার অর্থনীতি বিষয়ের দশম স্থানে রয়েছে।

বর্তমানে রাশিয়ার মোট জিডিপির হচ্ছে 1.483 trillion

USD (2020) ।

পড়তে থাকুন, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি এ সম্পর্কে।

Read more,

রাশিয়ার ভাষা

রাশিয়ার মোট জনসংখ্যার প্রায় 80% রুশ ভাষায় কথা বলে। এটি রাশিয়ার সরকারি ভাষা।

এছাড়া রাশিয়াতে 80 টিরও বেশি ভাষার প্রচলন রয়েছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ইউক্রেনিয়ান চেচেন, তাতার ইত্যাদি।

আমাদের শেষ কথা,

আশা করি আপনাদের সামান্য কিছু তথ্য দিতে পেরেছি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি এ সম্পর্কে। আশা করি বিশ্বের সবচেয়ে বড় দেশ কোনটি এর সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাইলে এই পোস্টটি যথেষ্ট হবে।

এ কনটেন্ট সম্পর্কে কোন কথা থাকলে নিজে কমেন্ট করে জানাবেন। আর ভালো লাগলে অবশ্যই লিংকটি কপি করে শেয়ার করে দিবেন। আজকে এ পর্যন্তই। Please visit us with jonmo nibondhon

রক্ত কি | রক্তের গ্রুপ | কোন রক্তের গ্রুপ সবচেয়ে ভালো

রক্ত কি: আসসালামু আলাইকুম। অনেকদিন পর আজকে কন্টেন্ট লিখতে বসলাম। আশা করি ভাল আছেন। স্কুলের প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষার জন্য অনেকদিন ধরে অনলাইনে আসা হয় না, তাই আর্টিকেল ও লিখতে পারিনা।

আমার আজকের এই আর্টিকেলের বিষয়বস্তু খুবই সাধারণ। আপনারা অনেকেই গুগলে সার্চ করে থাকেন রক্ত কি রক্তের গ্রুপ এবং কোন রক্তের গ্রুপ সবচেয়ে ভালো ইত্যাদি সম্পর্কে। আপনাদের জানানোর স্বার্থে আমি এই কন্টেন্টে রক্ত সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

এই কনটেন্টের প্রাথমিক তথ্য গুলো নবম দশম শ্রেণির জীববিজ্ঞান বই থেকে সংগ্রহ করা। এবং বাকি যে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো আমি দিবো সেগুলো ঊইকিপিডিয়া সহ বিভিন্ন জনপ্রিয় ওয়েব পোর্টাল থেকে সংগ্রহ করা।

আমার এই আর্টিকেলের যা যা থাকছেঃ

  • রক্ত কি।
  • রক্তের গ্রুপ।
  • রক্তকণিকা কি।
  • বিভিন্ন ধরনের রক্তের রোগ এবং এর প্রতিরোধ ও প্রতিকার।
  • রক্ত আদান-প্রদান সম্পর্কে বিস্তারিত নির্দেশনাবলী।
  • রক্তদান কর্মসূচির সুফল
  • রক্ত সম্বন্ধে কিছু সাধারন প্রশ্নাবলী ইত্যাদি।

রক্ত কি

রক্ত কি
রক্ত কি

রক্ত একটি অস্বচ্ছ, মৃদু ক্ষারীয় এবং লবণাক্ত তরল পদার্থ। অন্যভাবে বলতে গেলে রক্ত এক ধরনের ক্ষারীয় ঈষৎ লবণাক্ত এবং লাল বর্ণের যোজক টিস্যু। ধমনী শিরা ও কৈশিকনালি মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে রক্ত অভ্যন্তরীণ পরিবহনে অংশ নেয়। অর্থাৎ রক্ত হৃদপিণ্ড শিরা উপশিরা ধমনী এবং পথে আবর্তিত হয়

কিন্তু আমরা যখন পরীক্ষার খাতায় রক্ত কাকে বলে কিংবা রক্ত কি এই নিয়ে সংজ্ঞা লিখব তখন একটু সাজিয়ে গুছিয়ে লিখলে ভালো হবে।

রক্ত কাকে বলে? রক্ত কি এর সংজ্ঞা ? রক্তের সংজ্ঞা?

ক্ষারীয় , ঈষৎ লবণাক্ত এবং লাল বর্ণের তরল যোজক টিস্যুকে রক্ত বলে 

সাধারণ অর্থে রক্ত হচ্ছে একটি তরল উপাদান। আমাদের শরীরের কোন অংশ কেটে গেলে আঘাতপ্রাপ্ত হলে আপাতদৃষ্টিতে আমাদের শরীর থেকে যে লাল রংয়ের তরল পদার্থ বের হয় সেটিই রক্ত।

রক্ত যে শুধু মানবদেহে থাকে তা ঠিক নয়। রক্ত থাকতে পারে পশুপাখি মাছ কিংবা অন্যান্য প্রাণীর দেহেও ।

যেমন আমরা যখন কোন পশু জবাই করি কিংবা বাজার থেকে বড় মাছ কিনে আনি তখন এর শরীর থেকে প্রচুর রক্ত বের হয়।

এখন প্রশ্ন হতে পারে রক্তের রং লাল হয় কেন?

রক্তের রং লাল হয় এই কারণেই যে রক্তের মধ্যে এক ধরনের রঞ্জক পদার্থ বিদ্যমান যা রক্তের রং লাল করে দেয়। এই রঞ্জক পদার্থটির নাম হিমোগ্লোবিন

রক্তের উপাদান গুলোর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন জৈব এবং অজৈব পদার্থ বিভিন্ন ধরনের কলা এবং কয়েকটি প্রোটিন। এছাড়া তোমাকে অনেক কিছু উপাদান রয়েছে সেগুলো নিয়ে পরে আলোচনা করা হচ্ছে।

আমাদের দেহের ওজনের শতকরা 7 ভাগ রক্ত। সুতরাং সেই হিসেবে আমাদের দেহে রক্তের পরিমাণ 5 থেকে 6 লিটার।

রক্তের উপাদান

আমরা জানি প্রাণিটিস্যু কে প্রধানত চারটি ভাগে ভাগ করা হয় । এর মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক শুকায়ছে তরল যোজক টিস্যু। আরক্ত হচ্ছে এক ধরনের তরল যোজক টিস্যু।

রক্তের অভ্যন্তরস্থ উপাদানগুলোকে মোট দুই ভাগে ভাগ করা হয়। যথা:

১। রক্ত রস (plasma)

২। রক্ত কণিকা(blood corpuscles)

রক্তরস

রক্ত রস রক্তের তরল অংশ এবং এর রং হালকা হলুদাভাব । সাধারণত রক্তের শতকরা প্রায় 55 ভাগ রক্ত রস। রক্তরসের প্রধান উপাদান পানি। এছাড়া বাকি অংশে প্রোটিন সামান্য অজৈব লবণ এবং বিভিন্ন জৈব যৌগ দ্রবীভূত অবস্থায় থাকে।

রক্তরসের প্রায় 91 -92 শতাংশ পানি এবং 8-9 শতাংশ অংশ জৈব ও অজৈব পদার্থ।

জৈব পদার্থ:

রক্ত রসে মাত্র ৭.১%-৮.১% জৈব পদার্থ থাকে। এর মধ্যে অধিক পরিমাণে থাকে প্লাজমা প্রোটিন- গড়ে ৬-৮ গ্রাম/ডেসি লি.। প্লাজমা প্রোটিনগুলো হচ্ছে – অ্যালবুমিন, গ্লোবিউলিন, ফিব্রিনোজেন। এছাড়াও অন্যান্য জৈব পদার্থগুলো হল: স্নেহ দ্রব্য ( ফসফোলিপিড, লেসিথিন নিউট্রাল ফ্যাট, কোলেস্টেরল ইত্যাদি), কার্বোহাইড্রেট (গ্লুকোজ), অপ্রোটিন নাইট্রোজেন দ্রব্য (ক্রিয়েটিন, ক্রিয়েটিনিন, জ্যানথিন , অ্যামাইনো এসিড, ইউরিয়া, ইউরিক এসিড), রঞ্জক দ্রব্য (বিলিরুবিন, বিলিভার্ডিন), বিভিন্ন ধরনের এসিড (যেমন:-ভিটামিন, এনজাইম, মিউসিন ও অ্যান্টিবডি, সাইট্রিক এসিড, ল্যাকটিক এসিড, হরমোন )

আরো পড়ুন,

অজৈব পদার্থ:

রক্তরসে কয়েক ধরনের অজৈব পদার্থ দেখা যায়।এগুলো হল: জল ৯১%-৯২%।

০.৯% গ্যাসীয় পদার্থের মধ্যে আছে কার্বন ডাই অক্সাইড, অক্সিজেন, জলীয় বাষ্প ইত্যাদি।

কঠিন পদার্থ ৭%-৮% যার মধ্যে আছে ক্যাটায়ন ( P+++, Fe++, Cu+, Mn++, Zn++, Pb++, Na+, K+, Ca++, Mg++, ইত্যাদি ) ও অ্যনায়ন (PO43-, SO42-, Cl-, HCO-, ইত্যাদি)

মানব রক্তরসের কিছু প্রোটিন এবং অন্যান্য উপাদানসমূহ:

  • অ্যালবুমিন
  • গ্লোবিউলিন (অ্যান্টিবডি গামা/ইম্যুনো গ্লোব্যুলিন)
  • প্রতঞ্চক ও প্রতিতঞ্চক উপাদান সমূহ
  • কম্প্লিমেন্টস (২০টির বেশি)
  • ফাইব্রিনোজেন ও ভিট্রোনেক্টিন
  • সি আর পি
  • ট্রান্সফেরিন
  • ট্রান্সথাইরেটিন
  • সেরুলোপ্লাজমিন
  • হ্যাপ্টোগ্লোবিন
  • খনিজ লবণ
  • ভিটামিন
  • হরমোন
  • হিমোপেক্সিন
  • সাইটোকাইনস
  • লাইপোপ্রোটিন ও কাইলোমাইক্রন
  • এল বি পি
  • গ্লুকোজ
  • ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র চর্বিকণা
  • এন্টিবডি
  • বর্জ্যপদার্থ যেমন :- কার্বন ডাই অক্সাইড , ইউরিয়া , ইউরিক এসিড
  • খুব অল্প পরিমাণে সোডিয়াম ক্লোরাইড

রক্তরসের কাজ

  • অ্যান্টিবডি, কম্প্লিমেন্টস ইত্যাদি প্রাথমিক রোগ প্রতিরোধ উপকরণ রক্ত ধারণ করে।
  • রক্তের ভৌত গুন তরল হওয়ার প্রধান কারণ রক্ত রস।
  • বাফার হিসেবে কাজ করে এতে বিদ্যমান প্রোটিন।
  • দেহের ইলেক্ট্রোলাইটের ভারসাম্য রক্ষা করে।
  • দেহে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই-অক্সাইড পরিবহন করে।
  • মানবদেহে রক্তরসের মাধ্যমে পচিত খাদ্যবস্তু, হরমোন, উৎসেচক ইত্যাদি দেহের বিভিন্ন অংশে পরিবাহিত হয়।
  • রক্তরসের প্রোটিনের পরিমাণ রক্তের সান্দ্রতা (ঘনত্ব), তারল্য (fluidity), প্রবাহধর্ম (rheology) বজায় রাখে এবং পানির অভিস্রবণিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করে।
  • রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

রক্ত কণিকা

রক্ত কণিকা তিন ধরনের , যথা- লোহিত রক্তকণিকা ( Erythrocyte বা Red blood corpuscles বা RBC ) , শ্বেত রক্তকণিকা ( Leukocyte বা white blood corpuscles বা WBC ) এবং অণুচক্রিকা ( Thrombocytes বা Blood platelet ) । লোহিত রক্তকণিকায় হিমোগ্লোবিন নামে একটি লৌহজাত যৌগ থাকে , যার জন্য রক্ত লাল হয় । হিমোগ্লোবিন অক্সিজেনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে একটি অক্সিহিমোগ্লোবিন যৌগ গঠন করে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে অক্সিজেন পরিবহন করে । শ্বেত রক্তকণিকা জীবাণু ধ্বংস করে দেহের প্রকৃতিগত আত্মরক্ষায় অংশ নেয় । মানবদেহে বেশ কয়েক ধরনের শ্বেত রক্তকণিকা থাকে । অণুচক্রিকা রক্ত জমাট বাধায় অংশ নেয়।

উপর তথ্যগুলো শুধু রক্ত কণিকা সম্পর্কে একটি প্রাথমিক ধারণা। আমি রক্ত কণিকা গুলো সম্পর্কে নিচে বিশদভাবে আলোচনা করছি।

লোহিত রক্তকণিকা :

লোহিত রক্তকণিকা|red blood corpuscles
Red blood corpuscles

মানবদেহে তিন ধরনের রক্তকণিকার মধ্যে লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি । এটি শ্বাসকার্যে অক্সিজেন পরিবহনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । লাল অস্থিমজ্জায় লোহিত রক্তকণিকা তৈরি হয় । এর গড় আয়ু 120 দিন । মানুষের লোহিত রক্তকণিকায় নিউক্লিয়াস থাকে না এবং দেখতে অনেকটা দ্বি – অবতল বৃত্তের মতো । পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির রক্তে লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা প্রতি কিউবিক মিলিমিটারে প্রায় 50 লক্ষ ।

এটি শ্বেত রক্তকণিকার চেয়ে প্রায় 500 গুণ বেশি । পুরুষের তুলনায় নারীদের রক্তে লোহিত রক্তকণিকা কম । জীবনের প্রতি মুহূর্তে লোহিত রক্তকণিকা ধ্বংস হয় , আবার সমপরিমাণে তৈরিও হয় । লোহিত রক্তকণিকার হিমোগ্লোবিন অক্সিহিমোগ্লোবিন হিসেবে অক্সিজেন এবং কার্বন ডাই – অক্সাইড পরিবহন করে ।

হিমোগ্লোবিন : হিমোগ্লোবিন এক ধরনের রঞ্জক পদার্থ । লোহিত রক্তকণিকায় এর উপস্থিতির কারণে রক্ত লাল দেখায় । রক্তে প্রয়োজনীয় পরিমাণ হিমোগ্লোবিন না থাকলে রক্তস্বল্পতা বা রক্তশূন্যতা ( anemia ) দেখা দেয় । বাংলাদেশের প্রায় দুই তৃতীয়াংশ জনগোষ্ঠী এ রোগে আক্রান্ত ।

 

লোহিত রক্তকণিকার অস্বাভাবিক অবস্থা জনিত রোগ হচ্ছে থালাসেমিয়া। এটিও বাংলাদেশের জন্য একটি ঝুঁকিপূর্ণ রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শ্বেত রক্তকণিকা বা লিউকোসাইট

শ্বেত রক্তকণিকা|white blood corpuscles
White blood corpuscles

শ্বেতকণিকার নির্দিষ্ট কোনো আকার নেই । এগুলো হিমোগ্লোবিনবিহীন এবং নিউক্লিয়াসযুক্ত বড় আকারের কোষ । শ্বেত কণিকার গড় আয়ু ১-১৫ দিন । হিমোগ্লোবিন না থাকার কারণে এদের শ্বেত রক্তকণিকা , ইংরেজিতে White Blood Cell বা WBC বলে । শ্বেত কণিকার সংখ্যা RBC- এর তুলনায় অনেক কম । এরা অ্যামিবার মতো দেহের আকারের পরিবর্তন করে । ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় এটি জীবাণুকে ধ্বংস করে । 0.07 . শ্বেত কণিকাগুলো রক্তরসের মধ্য দিয়ে নিজেরাই চলতে পারে । রক্ত জালিকার প্রাচীর ভেদ করে টিস্যুর মধ্যে প্রবেশ করতে পারে । দেহ বাইরের জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হলে , দ্রুত শ্বেত কণিকার সংখ্যার বৃদ্ধি ঘটে । মানবদেহে প্রতি ঘনমিলিমিটার রক্তে 4-10 হাজার শ্বেত রক্তকণিকা থাকে । অসুস্থ মানবদেহে এর সংখ্যা বেড়ে যায় । স্তন্যপায়ীদের রক্তকোষগুলোর মধ্যে শুধু শ্বেত রক্ত কণিকায় DNA থাকে ।

আরো পড়ুন,

প্রকারভেদ : গঠনগতভাবে এবং সাইটোপ্লাজমে দানার উপস্থিতি বা অনুপস্থিতি অনুসারে শ্বেত কণিকাকে প্রধানত দুভাগে ভাগ করা যায় , যথা ( ক ) অ্যাগ্রানুলোসাইট বা দানাবিহীন এবং ( খ ) গ্রানুলোসাইট বা – দানাযুক্ত ।

 

( ক ) অ্যাগ্রানুলোসাইট : এ ধরনের শ্বেত কণিকার সাইটোপ্লাজম দানাহীন ও স্বচ্ছ । অ্যাগ্রানুলোসাইট শ্বেত কণিকা দুরকমের ; যথা- লিম্ফোসাইট ও মনোসাইট । দেহের লিম্ফনোড , টনসিল , প্লিহা ইত্যাদি অংশে এরা তৈরি হয়

। লিম্ফোসাইটগুলো বড় নিউক্লিয়াসযুক্ত ছোট কণিকা । মনোসাইট ছোট , ডিম্বাকার ও বৃক্কাকার নিউক্লিয়াসবিশিষ্ট বড় কণিকা । লিম্ফোসাইট অ্যান্টিবডি গঠন করে এবং এই অ্যান্টিবডির দ্বারা দেহে প্রবেশ করা রোগজীবাণু ধ্বংস করে । এভাবে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে । মনোসাইট ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় রোগজীবাণুকে ধ্বংস কণিকা করে ।

 

( খ ) গ্রানুলোসাইট : এদের সাইটোপ্লাজম সূক্ষ্ম দানাযুক্ত । গ্রানুলোসাইট শ্বেত কণিকাগুলো নিউক্লিয়াসের আকৃতির ভিত্তিতে তিন প্রকার যথা : নিউট্রোফিল , ইওসিনোফিল এবং বেসোফিল । নিউট্রোফিল ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় জীবাণু ভক্ষণ করে । ইওসিনোফিল ও বেসোফিল * হিস্টামিন নামক রাসায়নিক পদার্থ নিঃসৃত করে দেহে এলার্জি প্রতিরোধ করে । বেসোফিল হেপারিন নিঃসৃত করে রক্তকে রক্তবাহিকার ভিতরে জমাট বাঁধতে বাধা দেয় ।

পড়তে থাকুন, রক্ত কি

অণুচক্রিকা বা থ্রম্বোসাইট:

অনুচক্রিকা| thrombocytes
Thrombocytes

ইংরেজিতে এদেরকে প্লেইটলেট ( Platelet ) বলে । এগুলো গোলাকার , ডিম্বাকার অথবা রড আকারের হতে পারে । এদের সাইটোপ্লাজম দানাদার এবং সাইটোপ্লাজমে কোষ অঙ্গাণু- মাইটোকন্ড্রিয়া , গলিগ । বস্তু থাকে ; কিন্তু নিউক্লিয়াস থাকে না ।

অনেকের মতে , অণুচক্রিকাগুলো সম্পূর্ণ কোষ নয় ; এগুলো অস্থি মজ্জার বৃহদাকার কোষের ছিন্ন অংশ । অণুচক্রিকাগুলোর গড় আয়ু ৫-১০ দিন । পরিণত মানবদেহে প্রতি ঘনমিলিমিটার রক্তে অণুচক্রিকার সংখ্যা প্রায় আড়াই লাখ ।

অসুস্থ দেহে এদের সংখ্যা আরও বেশি হয় । অণুচক্রিকার প্রধান কাজ হলো রক্ত তঞ্চন করা বা জমাট বাঁধানোতে ( blood clotting ) সাহায্য করা । যখন কোনো রক্তবাহিকা বা কোনো টিস্যু ১৪১ আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে কেটে যায় , তখন সেখানকার অণুচক্রিকাগুলো সক্রিয় হয়ে উঠে অনিয়মিত আকার ধারণ করে এবং থ্রম্বোপ্লাসটিন ( Thromboplastin ) নামক পদার্থ তৈরি করে ।

এ পদার্থগুলো রক্তের প্রোটিন প্রোথ্রমবিনকে থ্রমবিনে পরিণত করে । থ্রমবিন পরবর্তী সময়ে রক্তরসের প্রোটিন- ফাইব্রিনোজেনকে ফাইব্রিন জালকে পরিণত করে রক্তকে জমাট বাধায় কিংবা রক্তের তঞ্চন ঘটায় । ফাইব্রিন একধরনের অদ্রবণীয় প্রোটিন , যা দ্রুত সুতার মতো জালিকা প্রস্তুত করে ।

এটি ক্ষত স্থানে জমাট বাঁধে এবং রক্তক্ষরণ বন্ধ করে । তবে রক্ত তঞ্চন প্রক্রিয়াটি আরও জটিল , এ প্রক্রিয়ায় জন্য আরও বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক পদার্থ এবং ভিটামিন K ও ক্যালসিয়াম আয়ন জড়িত থাকে ।

রক্তে উপযুক্ত পরিমাণ অণুচক্রিকা না থাকলে রক্তপাত সহজে বন্ধ হয় না । ফলে অনেক সময় রোগীর প্রাণনাশের আশঙ্কা থাকে ।

রক্তের কাজ:

রক্ত দেহের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান । এটি দেহের নানাবিধ কাজ করে , যেমন :

  •  অক্সিজেন পরিবহন : লোহিত রক্তকণিকা অক্সিহিমোগ্লোবিনরূপে কোষে অক্সিজেন পরিবহন করে ।
  • কার্বন ডাই – অক্সাইড অপসারণ : রাসায়নিক বিক্রিয়ার ফলে কোষগুলোতে যে কার্বন ডাই অক্সাইড উৎপন্ন হয় , রক্তরস সোডিয়াম বাই কার্বনেটরূপে তা সংগ্রহ করে নিয়ে আসে এবং নিঃশ্বাস বায়ুর সাথে ফুসফুসের সাহায্যে দেহের বাইরে বের করে দেয় ।
  • খাদ্যসার পরিবহন : রক্তরস গ্লুকোজ , অ্যামাইনো এসিড , চর্বিকণা ইত্যাদি কোষে সরবরাহ করে ।
  • তাপের সমতা রক্ষা : দেহের মধ্যে অনবরত দহনক্রিয়া সম্পাদিত হচ্ছে । এতে করে বিভিন্ন অঙ্গে বিভিন্ন মাত্রার তাপ সৃষ্টি হয় এবং তা রক্তের মাধ্যমে দেহের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে । এভাবে দেহের সর্বত্র তাপের সমতা রক্ষা হয় ।
  • বর্জ্য পদার্থ নিষ্কাশন : রক্ত দেহের জন্য ক্ষতিকর বর্জ্য পদার্থ বহন করে এবং বিভিন্ন অঙ্গের মাধ্যমে সেসব ইউরিয়া , ইউরিক এসিড ও কার্বন ডাই – অক্সাইড হিসেবে নিষ্কাশন করে ।
  •  হরমোন পরিবহন : হরমোন নালিবিহীন গ্রন্থিতে তৈরি এক ধরনের জৈব রাসায়নিক পদার্থ বা রস । এই রস সরাসরি রক্তে মিশে প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন অঙ্গে সঞ্চালিত হয় এবং বিভিন্ন জৈবিক কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।
  • রোগ প্রতিরোধ : কয়েক প্রকারের শ্বেত রক্তকণিকা ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় দেহকে জীবাণুর আক্রমণ থেকে রক্ষা করে । অ্যান্টিবডি ও অ্যান্টিজেন উৎপাদনের মাধ্যমে রক্ত দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ।
  • রক্ত জমাট বাঁধা : দেহের কোনো অংশ কেটে গেলে অণুচক্রিকা রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে এবং দেহের রক্তক্ষরণ বন্ধ করে ।

ব্লাড গ্রুপ বা রক্তের গ্রুপ:

একজন আশঙ্কাজনক বা মুমূর্ষু রোগীর জন্য রক্তের প্রয়োজন , তার রক্তের গ্রুপ ‘ বি ’ পজিটিভ । আপনারা এ রকম বিজ্ঞাপন প্রায়শই টেলিভিশনের পর্দায় দেখতে পান । রক্তের গ্রুপ বা ব্লাড গ্রুপ কী ? কেনইবা ব্লাড গ্রুপ জানা প্রয়োজন ? অসংখ্য পরীক্ষা – নিরীক্ষা এবং গবেষণার মাধ্যমে দেখা গেছে যে বিভিন্ন ব্যক্তির লোহিত রক্ত কণিকায় A এবং B নামক দুই ধরনের অ্যান্টিজেন ( antigens ) থাকে এবং রক্তরসে a ও b দুধরনের অ্যান্টিবডি ( antibody ) থাকে । এই অ্যান্টিজেন এবং অ্যান্টিবডির উপস্থিতির উপর ভিত্তি করে মানুষের রক্তকে বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ করা যায় । একে ব্লাড গ্রুপ বলে । বিজ্ঞানী কার্ল ল্যান্ডস্টেইনার 1901 সালে মানুষের রক্তের শ্রেণিবিন্যাস করে তা A , B , AB এবং O— এ চারটি গ্রুপের নামকরণ করেন । সাধারণত একজন মানুষের রক্তের গ্রুপ আজীবন একই রকম থাকে । নিচের সারণিতে রক্তের গ্রুপের অ্যান্টিবডি এবং অ্যান্টিজেনের উপস্থিতি দেখানো হলো :

আমরা উপরের সারণিতে রক্তে বিভিন্ন অ্যান্টিজেন এবং অ্যান্টিবডির উপস্থিতি দেখেছি । এর ভিত্তিতে আমরা ব্লাড গ্রুপকে এভাবে বর্ণনা করতে পারি । যেমন :

গ্রুপ A : এ শ্রেণির রক্তে A অ্যান্টিজেন ও ৮ অ্যান্টিবডি থাকে ।

গ্রুপ B : এ শ্রেণির রক্তে B অ্যান্টিজেন ও a অ্যান্টিবডি থাকে । 1

গ্রুপ AB : এই শ্রেণির রক্তে A ও B অ্যান্টিজেন থাকে এবং কোনো অ্যান্টিবডি থাকে না ।

গ্রুপ O : এ শ্রেণির রক্তে কোনো অ্যান্টিজেন থাকে না কিন্তু a ও b অ্যান্টিবডি থাকে ।

দাতার লোহিত কণিকা বা কোষের কোষঝিল্লিতে উপস্থিত অ্যান্টিজেন যদি গ্রহীতার রক্তরসে উপস্থিত এমন অ্যান্টিবডির সংস্পর্শে আসে , যা উক্ত অ্যান্টিজেনের সাথে বিক্রিয়া করতে সক্ষম তাহলে , অ্যান্টিজেন অ্যান্টিবডি বিক্রিয়া হয়ে গ্রহীতা বা রোগীর জীবন বিপন্ন হতে পারে । এজন্য সব গ্রুপের রক্ত সবাইকে দেওয়া যায় না । যেমন : তোমার রক্তের গ্রুপ যদি হয় A ( অর্থাৎ লোহিত কণিকার ঝিল্লিতে A অ্যান্টিজেন আছে ) এবং তোমার বন্ধুর রক্তের গ্রুপ যদি B হয় ( অর্থাৎ রক্তরসে a অ্যান্টিবডি আছে ) তাহলে তুমি তোমার বন্ধুকে রক্ত দিতে পারবে না । যদি দাও তাহলে তোমার A অ্যান্টিজেন তোমার বন্ধুর a অ্যান্টিবডির সাথে বিক্রিয়া করে বন্ধুকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিতে পারে । তাই দাতার রক্তে যে অ্যান্টিজেন থাকে তার সাথে মিলিয়ে এমনভাবে গ্রহীতা নির্বাচন করতে হয় যেন তার রক্তে দাতার অ্যান্টিজেনের সাথে সম্পর্কিত অ্যান্টিবডিটি না থাকে । এই মূলনীতির উপর ভিত্তি করে কোন গ্রুপ কাকে রক্ত দিতে পারবে বা পারবে না , তার একটা ছক বানানো যায় ।

নিচের ছবিটি দেখলে আপনি আরও স্পষ্ট হয়ে যাবেন। এখান থেকে আপনি বুঝতে পারবেন রক্তের দাতা এবং গ্রহীতা সম্পর্কে।

উপরের সারণিটি লক্ষ করলে দেখতে পারবে o গ্রুপের রক্তবিশিষ্ট ব্যক্তি সব গ্রুপের রক্তের ব্যক্তিকে রক্ত দিতে পারে । এদের বলা হয় সর্বজনীন রক্তদাতা ( universal donor ) ।

AB রক্তধারী ব্যক্তি যেকোনো ব্যক্তির রক্ত গ্রহণ করতে পারে । তাই তাকে সর্বজনীন রক্তগ্রহীতা ( universal recipient ) বলা হয় ।

আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানে সর্বজনীন রক্তদাতা কিংবা সর্বজনীন রক্তগ্রহীতার ধারণা খুব একটা প্রযোজ্য নয় । কেননা , রক্তকে অ্যান্টিজেনের ভিত্তিতে শ্রেণিকরণ করার ক্ষেত্রে ABO পদ্ধতি সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ হলেও রক্তে আরও অসংখ্য অ্যান্টিজেন থাকে , যেগুলো ক্ষেত্রবিশেষে অসুবিধার কারণ হতে পারে । যেমন : রেসাস ( Rh ) ফ্যাক্টর , যা এক ধরনের অ্যান্টিজেন ।

কারো রক্তে এই ফ্যাক্টর উপস্থিত থাকলে তাকে বলে পজিটিভ আর না থাকলে বলে নেগেটিভ । এটি যদি না মেলে তাহলেও গ্রহীতা বা রোগী আরও অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন ।

তাই ABO গ্রুপের পাশাপাশি রেসাস ফ্যাক্টরও পরীক্ষা করে মিলিয়ে দেখা চাই । অর্থাৎ রেসাস ফ্যাক্টরকে বিবেচনায় নেওয়া হলে রক্তের গ্রুপগুলো হবে A + , A- , B + B , AB + , AB- , O + এবং O- ।

নেগেটিভ গ্রুপের রক্তে যেহেতু রেসাস ফ্যাক্টর অ্যান্টিডে নেই , তাই এটি পজিটিভ গ্রুপকে দেওয়া যাবে কিন্তু পজিটিভ গ্রুপের রক্ত নেগেটিভ গ্রুপকে দেওয়া যাবে না ।

রক্তদান সম্পর্কিত কিছু কথা

আঘাত দুর্ঘটনা শল্যচিকিৎসা প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা অন্য কোনো কারণে অত্যাধিক রক্তক্ষরণ হলে দেহে রক্তের পরিমাণ আশঙ্কাজনকভাবে কমে যায়। রক্তশূন্যতা দূর করার জন্য ওই ব্যক্তিকে ইমিডিয়েটলি রক্ত প্রদান করতে হয়। কিন্তু বাংলাদেশের কিছু সামাজিক প্রথার কারণে রক্ত দানে মানুষ উৎসাহী নয়।

আসলে রক্তদানের বৈজ্ঞানিক কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া কিংবা ব্যাড ইফেক্ট নেই। এর কোন ধরনের খারাপ প্রভাব নেই বরঞ্চ আপনি রক্তদান করলে শারীরিকভাবে সুস্থ থাকবেন।

মাঝে মাঝে অনেক বড় ধরনের দুর্ঘটনায় বেশ কিছু লোক আহত হয়ে পড়েন এবং তাদের রক্তক্ষরণ অনেক হওয়ার কারণে তাদের ইমিডিয়েটলি রক্ত দেওয়ার প্রয়োজন হয়। এ সময় যদি প্রয়োজনীয় গ্রুপের রক্ত না পাওয়া যায় তাহলে লোক গুলো মৃত্যুবরণ করবে।

এই ধরুন, কিছুদিন আগে বাংলাদেশের সীতাকুণ্ডে কন্টেইনার বিস্ফোরণের কারণে কতগুলো লোক মৃত্যুবরণ করল এবং সাথে শত শত লোক আহত হয়ে গেল, তাদের বাঁচানোর জন্য সর্বপ্রথম অস্ত্র ছিল রক্ত। যদি বাংলাদেশের স্বেচ্ছাসেবী দলগুলো এবং ইসলামী চিন্তা ধারার যুবকরা এগিয়ে না আসতো তবে এগুলো কে বাঁচানো সম্ভব হতো না।

আপনি হিন্দু হন কিংবা মুসলিম হন কিংবা অন্যান্য ধর্মের হন এটা কোন দেখার বিষয় না। সবার শরীরের ভিতরে রক্ত একই । শুধু গ্রুপ ভিত্তিক রক্ত কয়েক প্রকার।

রক্ত সম্পর্কিত প্রশ্নাবলী

  • রক্ত কি

রক্ত একটি তরল যোজক টিস্যু যার রং লাল।

  • রক্ত কি নাপাক?

রক্ত কি নাপাক তরল। কারো শরীরে যদি রক্ত লেগে থাকে তাহলে তার ওযু হবে না। কিংবা অজু অবস্থায় যদি রক্ত বের হয় তাহলে ওই থাকবে না।

  • রক্ত কি কি উপাদান নিয়ে গঠিত?

রক্ত দুটি উপাদান নিয়ে গঠিত। একটি আছে রক্ত রস আরেকটি হচ্ছে রক্তকণিকা।

  • রক্ত কেন জমাট বাঁধে?

রক্তে হিমোগ্লোবিন নামক এক প্রকার রঞ্জক পদার্থ থাকে। এটি রক্তের রং লাল করে দেয়।

  • রক্ত কি ধরনের টিস্যু?

রক্ত এক ধরনের তরল যোজক টিস্যু।

আরো পড়ুন,

 

আমার শেষ কথা,

আশা করি আপনাদের বুঝাতে পেরেছি রক্ত কি? রক্তের কাজ কি ?রক্তের উপাদান কতটি ? ইত্যাদি সম্পর্কে। আমার উপরে তথ্য গুলো খুবই সাধারণ। আমি এর চেয়ে আরো বেশি কষ্ট দিতে চেয়েছিলাম তবে সেগুলো আপনাদের জন্য বোঝা অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে যেতো।

আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। যদি এই পণ্যটি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

 

 

আমাদের দেশ রচনা। এক হাজার শব্দের মধ্যে রচনা।

আসসালামু আলাইকুম। বন্ধুরা আমি এই আর্টিকেলে আমাদের দেশ রচনা

এক হাজার শব্দের মধ্যে উপস্থাপন করতে চেষ্টা করব।আমাদের দেশ রচনা টি প্রায় সব জায়গায় প্রয়োজন হয়। যেমন রচনা প্রতিযোগিতা, বিভিন্ন পরিক্ষার প্রশ্নে ইত্যাদি।

যদিও আমাদের দেশ রচনা এক হাজার শব্দের মধ্যে লেখা সম্ভব না কেনোনা আমাদের দেশ সম্পর্কে বলতে গেলে অফুরন্ত কথা বলা যায়। 

তো কথা আনা বাড়িয়ে নিচে আমাদের দেশ রচনা তুলে ধরা হলো। (here all information collected fro Wikipedia)

আমাদের দেশ রচনা    

ভূমিকাঃ

একটি নির্দিষ্ট ভূখন্ডকে তখনি দেশ বলা যাবে যখন তার সার্বভৌমত্ব,জনগন ও সরকার থাকবে।এর মধ্যে কোনো একটি অনুপস্থিত থাকলে সেই ভূখন্ডকে আমরা দেশ বলতে পারব না।

আমাদের দেশের নাম হচ্ছে বাংলাদেশ। এদেশের রয়েছে সার্বভৌমত্ব, রয়েছে ১৭ কোটি জনগণ আর রয়েছে সুগঠিত সরকার। ১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করে।

সুজলা -সুফলা এই বৈচিত্র্যময় প্রকৃতির দেশে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ঋতু। বছরের ছয়টি ঋতুর প্রভাবে এদেশের প্রকৃতি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রূপ ধারণ করে। 

গ্রীষ্মের রসালো ফল, বর্ষার গুড়িগুড়ি বৃষ্টি, শরতের কাশফুল, হেমন্তের নতুন ফসল, শীতের পিঁঠাপুলি আর বসন্তের ফুলের সমাহার এবং কোকিলের ডাক সবমিলিয়ে আমাদের দেশ যেনো এক প্রকৃতির লীলাভূমি।

বাংলাদেশের রয়েছে সুদীর্ঘ ইতিহাস এবং সমৃদ্ধময় সংস্কৃতি। এছাড়াও রয়েছে নিজস্ব ভাষা, হাজারো ঐতিহাসিক স্থান, বিরত্বের উদাহরণ ইত্যাদি।

বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবস্থান ও সীমানাঃ 

এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণে বাংলাদেশের অবস্থান । বাংলাদেশ ২০ ° ৩৪ ′ উত্তর অক্ষরেখা থেকে ২৬ ° ৩৮´ উত্তর অক্ষরেখার মধ্যে এবং ৮৮ ° ০১´ পূর্ব দ্রাঘিমা রেখা থেকে ৯২ ° ৪১ ′ পূর্ব দ্রাঘিমা রেখার মধ্যে অবস্থিত । বাংলাদেশের মাঝামাঝি স্থান দিয়ে কর্কটক্রান্তি রেখা ( ২৩ ° ৫ ) অতিক্রম করেছে ।

পূর্ব – পশ্চিমে সর্বোচ্চ বিস্তৃতি ৪৪০ কি.মি. এবং উত্তর – উত্তর পশ্চিম থেকে দক্ষিণ – দক্ষিণ পূর্ব প্রান্ত পর্যন্ত সর্বোচ্চ বিস্তৃতি ৭৬০ কি.মি .।

বাংলাদেশের উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ , মেঘালয় ও আসাম ; পূর্বে আসাম , ত্রিপুরা ও মিজোরাম এবং মিয়ানমার ; দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর এবং পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ অবস্থিত । বাংলাদেশের মোট আয়তন ১,৪৭,৫৭০ বর্গ কি.মি. বা ৫৬ , ৯৭৭ বর্গমাইল ।

সর্বশেষ লেখনি,

বাংলাদেশের জনসংখ্যা ও জনবসতিঃ

জনসংখ্যার দিক থেকে পৃথিবীতে বাংলাদেশের স্থান নবম । ভূখণ্ডের তুলনায় এদেশের জনসংখ্যার ঘনত্বও খুব বেশি । তাছাড়া জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারও বেশি ।

২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল প্রায় ১২.৯৩ কোটি , জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৪৮ % এবং প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ৮৭৬ জন ।

আদমশুমারি -২০১১ অনুসারে বাংলাদেশের জনসংখ্যা প্রায় ১৪.৯৭ কোটি , জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩৭ % এবং প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ১০১৫ জন । ভূ – প্রকৃতির গঠনের বিভিন্নতার কারণে এদেশে অঞ্চলভেদে জনসংখ্যার ঘনত্বের পার্থক্য দেখা যায় ।

পড়তেই থাকুন, আমাদের দেশ রচনা। 

বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব অর্জনঃ

বাংলাদেশ অনেক ত্যাগ – তিতিক্ষার মধ্যে সিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর দুটি দেশের জন্ম হয়৷ একটি পাকিস্তান আর একটি ভারত।

পাকিস্তানের দুটি অংশ ছিলো যা পূর্ব পাকিস্তান বা বাংলাদেশ এবং পশ্চিম পাকিস্তান অংশে বিভক্ত ছিল। যদিও তখন বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের অধীনে ছিলো তবুও বাংলাদেশ অনেক নির্যাতনের স্বীকার ছিল।

বাংলাদেশের জনগন সবসময় নিপীড়নের স্বীকার হতো। নির্বাচনে জয়লাভ করেও বাংলাদেশের জনগন পায়নি ক্ষমতা। তারই প্রতিবাদ যখন বাংলাদেশের জনগন করেছিলো তারা আমাদের দেশের জনগনকে নির্বিচারে হত্যা করে।

ধীরে ধীরে বাংলাদেশের মানুষ বুঝতে পারে যে জীবনপন যুদ্ধ ছাড়া পাকিস্তানিদের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া অসম্ভব।

তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের জনগন মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হয়। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নের্তৃত্বে বাঙালিরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে।

ভারত, সোভিয়েত ইউনিয়ন সহ বিভিন্ন দেশের সহায়তায় বাঙ্গালিরা মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভ করে এবং স্বাধীনতা অর্জন করে।

বাংলাদেশের পুরাকীর্তিঃ

প্রাচীন ও ঐতিহাসিক নিদর্শনের জন্য বাংলাদেশের পরিচিতি আছে সারা বিশ্বে। বর্তমানে বাংলাদেশে যেসব পুরাকীর্তি আবিষ্কৃত হয়েছে তার মধ্যে মহাস্থানগড়, পাহাড়পুর বিহার এবং ময়নামতির আনন্দবিহার উল্লেখযোগ্য।

আমাদের দেশ রচনা
পাহাড়পুর

পুরাকীর্তি ও নিদর্শনের অতীত ইতিহাস জানানোর জন্য জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। যেখানে আমরা নতুন প্রজন্ম ইতিহাস থেকে জ্ঞান অর্জন করতে পারব।

বাংলাদেশ হিন্দু ও বুদ্ধ ধর্মের পুরাকীর্তি অঞ্চল হিসেবে সমৃদ্ধ।যার মধ্যে নওগাঁ জেলার পাহাড়পুর , বগুড়ার মহাস্থানগড় এবং কুমিল্লার ময়নামতী উল্লেখযোগ্য । বর্তমানে খননকাজ চলছে বেশ কিছু পুরাকীর্তি অঞ্চলে ।

উয়ারী বটেশ্বর তার মধ্যে অন্যতম । পাহাড়পুর হচ্ছে সবচেয়ে বড়ো আশ্রম , মঠ এবং মন্দির । অন্যদিকে মহাস্থানগড় শুধু একটি শহর নয় ধর্মীয় দিক থেকে এর গুরুত্ব অনেক । ময়নামতী বৌদ্ধবিহার অষ্টম শতাব্দীতে বৌদ্ধ ধর্মের আশ্রম ও মন্দির হিসেবে নির্মিত হয় ।

এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু পুরাকীর্তি অঞ্চল আবিষ্কৃত হয়েছে ভাসুবিহার , হলুদ বিহার , সীতাকোট এবং জগদ্দল তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ।

স্যার আলেকজান্ডার কানিংহাম ১৮৭৯ সালে বাংলাদেশ পরিদর্শনে আসেন । এসময় তিনি প্রত্নতাত্ত্বিক খননকাজের মাধ্যমে মহাস্থানগড় ও পাহাড়পুর বিহার আবিষ্কার করেন । এছাড়া তিনি মহাস্থানগড়ের নিকটে অবস্থিত ভাসুবিহার এবং পাহাড়পুরের নিকটবর্তী যোগীগুফা , ঘটিনগর ও দিবারদিঘি আবিষ্কার করেন ।

পড়তেই থাকুন, আমাদের দেশ রচনা

ঋতু বৈচিত্রে বাংলাদেশঃ

ঋতুপরিক্রমায় বাংলায় আসে গ্রীষ্ম , বর্ষা , শরৎ , হেমন্ত , শীত ও বসন্ত । দুই মাসে একটি ঋতু । বৈশাখ – জ্যৈষ্ঠ গ্রীষ্মকাল , আষাঢ় – শ্রাবণ বর্ষাকাল , ভাদ্র – আশ্বিন শরৎকাল , কার্তিক – অগ্রহায়ণ হেমন্তকাল , পৌষ মাঘ শীতকাল এবং ফাল্গুন – চৈত্র বসন্তকাল ।

এ ছয় ঋতুর আবর্তনে কেটে যায় বছর । তবে এ ঋতুপরিক্রমা যে সবসময় মাসের সীমারেখা মেনে চলে এমন নয় । তবু বাংলার প্রকৃতি আর মানুষের জীবনযাত্রার ধরন বিন্যস্ত হয় এ ঋতু – পরিক্রমাকে কেন্দ্র করে ।

বাংলার ঋতুর রূপবৈচিত্র্যে মুগ্ধ কবি তাই আবেগভরে লেখেন :

‘ ঋতুর দল নাচিয়া চলে ভরিয়া ডালি ফুলে ও ফলে নৃত্যলোল চরণতলে মুক্তি পায় ধরা ছন্দে মেতে যৌবনেতে রাঙিয়ে ওঠে জরা । ’

মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে এদেশে ঋতুবৈচিত্র্য সৃষ্টি হয় আর বাংলার প্রকৃতিকে সাজায় অনবদ্য রূপে । এমনি বিচিত্র রূপে বাংলার প্রকৃতিতে ছয়টি ঋতুর পালাবদল ঘটে ।

এই পালাবদলের ছোঁয়ায় প্রকৃতিতে নতুনের দোলা লাগে । আমাদের জীবন ভরে ওঠে বিচিত্র অনুভূতিতে । প্রকৃতপক্ষে , ষড়ঋতুই বাংলার প্রকৃতিকে এত মোহনীয় করেছে ।

ডিজিটাল যুগে বাংলাদেশঃ

বিশ্বব্যাপী তথ্যপ্রযুক্তি দ্রুত প্রসারের ফলে বাংলাদেশ ইতিমধ্যে বর্হিবিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করেছে । আজ তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড়ো সাফল্য মোবাইল ফোনের ক্রমবর্ধিত ব্যবহার । এটি বাংলাদেশের যোগাযোগ মাধ্যমে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে ।

তবে তথ্যপ্রযুক্তির অন্যান্য ক্ষেত্রে আমাদের অর্জন অনেক কম । দেরিতে হলেও বাংলাদেশ SEA – ME WE4  সাবমেরিন ফাইবার অপটিক ক্যাবলের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে । ১০ সেপ্টেম্বর , ২০১৮ তারিখে পটুয়াখালীর কুয়াকাটার দেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয় । বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপে গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে ।

জাতিসংঘে বাংলাদেশঃ

বাংলাদেশ ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ করে। বাংলাদেশে জাতিসংঘের সবক’টি অঙ্গ সংস্থার মিশন আছে । জাতিসংঘের ১৩৬ তম সদস্য বাংলাদেশ সবসময়ই এর বিশেষ নজর পেয়ে থাকে ।

১৯৭৪ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংধের সাধারণ পরিষদে বাংলা ভাষায় বক্তৃতা প্রদানের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের গভীর মনোযোগ আকর্ষণ করেন । জাতিসংঘের সবক’টি অঙ্গ সংস্থা শুরু থেকেই বাংলাদেশের আর্থ – সামাজিক অবস্থা পরিবর্তনের জন্য কাজ করছে ।

এ বিশ্ব সংস্থাটির চার জন মহাসচিব পাঁচ বার বাংলাদেশ সফর করে গেছেন । জাতিসংঘে বাংলাদেশের আর্থিক অবদান কম হলেও বাংলাদেশের ‘ সৈন্যরা প্রাণ উৎসর্গ করে শান্তিরক্ষা মিশন পরিচালনায় কার্যকরী ভূমিকা রাখছে । এছাড়া জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ করার পর থেকে বাংলাদেশ এই বিশ্ব সংস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে ।

১৯৭৯-৮০ এ সময়ের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্যপদে বাংলাদেশের নির্বাচন তার এ ভূমিকার স্বীকৃতি এবং বিশ্ব সম্প্রদায়ের আস্থার স্বাক্ষরবাহী । ১৯৮৪ সাল থেকে জাতিসংঘের কার্যপ্রণালিতে বাংলা ভাষার ব্যবহার আমাদের জন্য খুবই গৌরবের ।

১৯৮৬ সালে বাংলাদেশের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৪১ তম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন । তাঁর এই সভাপতি নির্বাচিত হওয়া বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের বিশেষ ভূমিকার কথাই স্মরণ করিয়ে দেয় । বিবাদের শান্তিপূর্ণ মীমাংসায় জাতিসংঘ ঘোষিত নীতি অনুসরণ করে বাংলাদেশ ভারতের সঙ্গে গঙ্গার পানি বণ্টন বিষয়ক দীর্ঘকালের সমস্যা নিরসনে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের সংঘাতময় পরিস্থিতির সুষ্ঠু সমাধানে সফল হয়েছে ।

এছাড়াও ২০১২ সালে সমুদ্রসীমা নিয়ে মিয়ানমারের সাথে ৩৮ বছরের বিরোধ নিষ্পত্তি হয় এবং আমাদের দেশ নতুন প্রায় সাড়ে ১৯ হাজার বর্গ কিলোমিটার সমুদ্র এলাকা পেয়েছে।

 উপসংহারঃ

বাংলাদেশের জনগন শান্তিপ্রিয়। সর্বদা এদেশের সরকার এদেশের নিরাপত্তা এবং উন্নয়নের জন্য কাজ করে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, সামগ্রিক নিরাপত্তা, শিক্ষা ইত্যাদি বিষয়ে আমাদের দেশ অনেক ভালো পর্যায়ে আছে। তাই আমাদের উচিত দেশের পাশে থাকা দেশকে সাপোর্ট করা।

ইতি,

আপনারা যদি চান তাহলে এই আমাদের দেশ রচনা এর সাথে আরো কিছু বিষয় উপস্থান করতে পারবেন। যেমন আমাদের দেশ এর উৎসব, দেশের সংস্কৃতি ইত্যাদি।

ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন। সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি আমাদের দেশ রচনা এক হাজার শব্দের মধ্যে লিখতে ।

আড়ও পড়ুন,

School Library Paragraph

School Library Paragraph ( Read Full Paragraph)

The school library is a place where students can go to study, do research, and read for pleasure. The library has a variety of resources, including books, magazines, newspapers, and computers. The library also has a staff of trained professionals who can help students with their research.

School Library Paragraph

Also read: Traffic Jam Paragraph

School libraries are important because they provide a space for students to explore their interests and develop a love for learning

School libraries are important because they provide a space for students to explore their interests and develop a love for learning. In a school library, students have the opportunity to browse books, magazines, and other materials that they might not have access to at home.

They can also ask the librarian for help finding information on a specific topic. Many school libraries also offer computers with internet access, which can be a valuable resource for students who don’t have access to a computer at home. The library is a quiet place where students can go to study or do homework. It’s also a great place to find new books to read for pleasure.

Spending time in the library can help students develop a love for learning. They can explore new topics that they’re interested in and find information that they didn’t even know they were looking for. The library is a valuable resource for all students, and it’s important to take advantage of all that it has to offer.

School libraries also offer resources that can help students succeed in their studies

I would like to school library paragraph because school libraries offer resources that can help students succeed in their studies, including books, databases, and online resources.

Additionally, school libraries provide a quiet place for students to study and do homework. Finally, school librarians can help students find information and resources. School libraries offer a variety of resources that can help students succeed in their studies.

School Library Paragraph

Books are a great resource for students to use for research or to find information on a specific topic. Additionally, school libraries typically have databases that students can use to access articles and other information.

Online resources are also available through most school libraries, which can be very helpful for students who are doing research or working on assignments. Another reason why I would like to have a school library paragraph is because school libraries provide a quiet place for students to study and do homework.

This is important because it can be difficult for students to focus on their work at home if there are distractions such as noise or family members. Additionally, having a dedicated space to study can help students to be more productive and efficient.

Finally, I would like to have a school library paragraph because school librarians can help students find information and resources. Librarians are trained in research and can often help students save time by finding the information they need.

Additionally, librarians can help students to understand how to use different resources and can provide guidance on research projects.

Furthermore, school librarians are trained professionals who can help students find the information they need and use it effectively

I would like to point out that school librarians are trained professionals who can help students find the information they need and use it effectively.

Furthermore, school librarians are usually familiar with the curriculum, so they can guide students to resources that support what they are learning in class.

Additionally, librarians can teach students research and information literacy skills that will help them in school and in their future careers.

Finally, school libraries provide a quiet space for students to read, study, and work on projects

IV. Finally, school libraries provide a quiet space for students to read, study, and work on projects. The school library is the perfect place for students to go to get away from the hustle and bustle of the classroom.

It is a quiet space where students can go to read, study, and work on projects. The school library is a great resource for students who need a quiet place to work.

In conclusion, school libraries are essential to the academic success of students.

V. In conclusion, school libraries are essential to the academic success of students. School libraries provide a quiet place for students to study and do homework. They also offer a wide variety of resources that can help students with their academic work.

Research has shown that students who use their school library regularly tend to have higher grades and test scores than those who do not. This is likely because they have more access to information and resources that can help them succeed.

School libraries are an important part of the educational process, and they should be maintained and supported in order to ensure that all students have the opportunity to succeed academically.

Conclusion

The school library is a great place to find resources for your studies, to do research, and to find a quiet place to read. The staff are usually very helpful and can point you in the right direction if you’re not sure where to start.

Traffic Jam Paragraph

Traffic Jam Paragraph? ( Read Full Paragraph)

A traffic jam is a condition on land transport networks that occurs as use increases and is characterized by slower speeds, longer trip times, and increased vehicular queueing.

When traffic demand is great enough that the interaction between vehicles slows the speed of the traffic stream, this results in some congestion.

As demand approaches the capacity of a road (or of the intersections along the road), extreme traffic congestion sets in. When vehicles are fully stopped for periods of time, this is colloquially known as a traffic jam or traffic snarl-up.

Traffic jams can result from the slow movement of vehicles through an intersection and from slow vehicle speeds within a traffic stream.

Traffic jams may also result from the actions of one particularly slow vehicle, whose slow speed reduces the flow of traffic behind it.

Introduce the topic of traffic jams

Traffic Jam Paragraph

1. Traffic jams are a common occurrence in many cities around the world. They can be caused by a number of factors, including bad weather, accidents, and construction.

2. Traffic jams can have a number of negative effects, including making people late for appointments and causing frustration.

3. There are a few things that people can do to try to avoid traffic jams, such as leaving early for their destination and taking alternative routes.

4. Traffic jams are not fun for anyone, but they are a fact of life in many places. It is important to be patient and try to stay calm when stuck in one.

Read More: Padma Bridge Paragraph

Offer a detailed description of a typical traffic jam

Traffic jams are one of the most frustrating things that a person can experience while driving.

They are especially frustrating when you are caught in the middle of one. A traffic jam can be caused by a number of things, but the most common cause is simply too much traffic on the road.

When there is too much traffic, it can cause cars to slow down and eventually come to a stop. This can happen on any type of road, but it is most common on highways. A traffic jam can be a very frustrating experience. You may be sitting in your car, waiting to move, for what seems like forever.

The cars around you may be honking their horns, and people may be getting angry. You may feel like you are never going to get out of the traffic jam. eventually, the traffic jam will start to move. It may take a while to get moving again, but eventually, you will be on your way.

Traffic jams are just a part of driving, and they are something that you will have to deal with from time to time.

Read More: Winter Morning Paragraph

Discuss the frustration and inconvenience that traffic jams cause commuters

Traffic jams are one of the most frustrating and inconvenient things that commuters have to deal with on a daily basis. They cause people to be late for work, appointments, and other commitments.

They also add to the stress of driving and can be a major source of road rage. In addition, traffic jams can cause accidents, as drivers become impatient and try to make their way through the congestion.

Describe some of the measures that have been taken to try to alleviate the problem of traffic jams.

Describe some of the measures that have been taken to try to alleviate the problem of traffic jams There are a number of things that cities and municipalities can do to try to alleviate traffic congestion.

One common measure is to create or expand public transportation options, such as buses, trains, or subways.

This can help get people out of their cars and onto mass transit, which can help to reduce the number of vehicles on the road. Another measure that can be taken is to create or expand carpooling and ride-sharing options. This can also help to reduce the number of vehicles on the road, as well as the number of people who are driving alone. Another common measure is to try to improve the flow of traffic.

This can be done by making sure that traffic signals are coordinated, and by adding or expanding roads and highways. In some cases, cities will also implement tolls or congestion pricing. This is where drivers have to pay a fee to use certain roads during peak hours. This can help to discourage people from driving during times when traffic is heaviest.

These are just a few of the measures that can be taken to try to alleviate traffic congestion. With the right measures in place, it is possible to make a significant dent in the problem.

Summarize the essay by reiterating the main points about traffic jams

Traffic jams are one of the most frustrating things that a person can experience. They can cause people to be late for work, miss appointments, and generally, just make life difficult.

There are a few things that can cause traffic jams, and understanding these can help you to avoid them. One of the most common causes of traffic jams is simply too much traffic. This can happen when there are a lot of cars on the road, or when the roads are not designed to handle the amount of traffic that is trying to use them.

When there is too much traffic, it can cause the cars to slow down and eventually come to a stop. Another common cause of traffic jams is an accident. When there is an accident, it can block one or more lanes of traffic, and this can cause the cars to back up. Accidents can also cause traffic jams by causing people to rubberneck, which is when they slow down to look at the accident.

This can cause a domino effect, with the cars behind the rubberneckers also slowing down and eventually coming to a stop. Bad weather can also cause traffic jams.

If it is raining or snowing, this can make the roads slippery and difficult to drive on. This can cause accidents, and it can also make it difficult for the plows to clear the roads. There are a few things that you can do to avoid traffic jams.

First, try to avoid driving during rush hour if possible. If you must drive during rush hour, try to take alternate routes. Second, be aware of the weather conditions and plan your route accordingly.

Third, give yourself extra time so that you are not in a hurry. And fourth, be patient. Traffic jams are frustrating, but they will eventually clear up.

Read More: Female Education Paragraph

Conclusion

In conclusion, the Traffic Jam paragraph was an effective way to present information on how to avoid a traffic jam. The tips were easy to follow and the visual aids helped to explain the concepts.

Padma Bridge

Padma Bridge Paragraph ( Read Full Paragraph)

The Padma Bridge is a multipurpose road-rail bridge under construction over the Padma River in Bangladesh.

When completed, the bridge will connect the country’s southern region with the capital, Dhaka, and the country’s northern and eastern regions. The 6.15 kilometer (3.83 mi) bridge will be the largest in Bangladesh and the longest in South Asia.

The bridge is being constructed by the Chinese state-owned company, China State Construction Engineering Corporation (CSCEC).

Construction of Padma Bridge has already begun and it is scheduled to be completed by 2018

Padma Bridge

Construction of Padma Bridge has already begun and it is scheduled to be completed by 2018. The Padma Bridge is a multipurpose road-rail bridge across the Padma River in Bangladesh.

When completed, the 6.15 kilometer bridge will be the largest in Bangladesh and will link the country’s southeast to the northwest, improving connectivity and trade. The bridge will also provide much needed relief to the people of Bangladesh who have long been reliant on ferries to cross the Padma River.

The construction of the Padma Bridge is a massive undertaking and is being carried out by a consortium of Chinese and Bangladeshi companies. The total cost of the project is estimated to be over $3 billion.

Read Related Post: Winter Morning Paragraph

Upon completion, Padma Bridge will be the largest bridge in Bangladesh

Upon completion, Padma Bridge will be the largest bridge in Bangladesh, as well as the longest bridge in South Asia.

The bridge is being constructed to connect the country’s southwest region to the capital, Dhaka.

The total length of the bridge will be 6.15 kilometers (3.82 miles), with a main span of 1.8 kilometers (1.1 miles).

The bridge will have a total of 485 spans, each measuring 30 meters (98 feet). The bridge will have a width of 20 meters (66 feet) and a height of 20 meters (66 feet).

The construction of the Padma Bridge is expected to be completed by the end of 2018.

The bridge is being built in order to improve connectivity between the southern and northern parts of Bangladesh

The Padma Bridge is being built in order to improve connectivity between the southern and northern parts of Bangladesh.

The bridge will be the country’s longest, and will span over 6 kilometers. It is being built with the help of Chinese loans and assistance, and is expected to be completed by 2020.

The bridge will improve trade and transportation between the two parts of Bangladesh, and is expected to boost the economy.

The overall cost of the project is estimated to be around $3.5 billion.

Padma Bridge

The Padma Bridge is a multipurpose road-rail bridge across the Padma River in Bangladesh. It is the country’s largest and one of the largest bridges in the world.

The overall cost of the project is estimated to be around $3.5 billion. Construction of the bridge is underway and is expected to be completed by 2019. The bridge is being built to connect the capital city of Dhaka with the southern part of the country.

It will improve connectivity between the two regions and reduce travel time and costs. The bridge will also boost trade and tourism in Bangladesh.

The Padma Bridge project is being funded by the World Bank, the Asian Development Bank, the Islamic Development Bank, and the Government of Bangladesh.

The project is being funded by a number of different sources

The Padma Bridge is a multipurpose road-rail bridge across the Padma River in Bangladesh. The project is being funded by a number of different sources, including the World Bank, the Asian Development Bank, and the Government of Bangladesh.

When complete, the bridge will be the longest in Bangladesh and will connect the country’s capital, Dhaka, with the south-western region of the country. Construction of the bridge is currently underway, and it is expected to be completed in 2020.

When finished, the Padma Bridge will provide a much-needed boost to the economy of Bangladesh, and will help to improve connectivity between different parts of the country.

Conclusion

The Padma Bridge is a magnificent structure that will serve as an important link between the people of Bangladesh.

The bridge will provide much needed transportation and infrastructure improvements for the country, and will be a lasting symbol of the country’s development.

Winter Morning Paragraph

Winter Morning Paragraph ( Read Full Paragraph)

A winter morning is a special time. The air is crisp and fresh, and the world is blanketed in a layer of white. It’s a time to enjoy the simple things in life, like a cup of hot coffee and a good book. There’s something about a winter morning that just feels magical.

Maybe it’s the way the snow sparkles in the sunlight or the way the air seems to be filled with possibilities. Whatever the reason, winter mornings are definitely a time to be cherished.

1. It was a cold winter morning

Winter Morning Paragraph

1. It was a cold winter morning. The sun had not yet risen, and the only light came from the moon, which cast a pale light over the snow-covered landscape. The air was still and the only sound was the soft crunch of snow underfoot.

I walked slowly, taking in the beauty of the winter wonderland around me. The snow was like a blanket, covering everything in a soft white layer.

The trees were like sentinels, standing tall and proud. I felt a sense of peace and stillness in the air. It was a magical moment.

Read Related Post: Female Education Paragraph?

2. The sun was just peeking over the horizon

The sun was just peeking over the horizon, and the frost was still sparkling on the ground. The cold air nipped at my nose as I took a deep breath in.

I love winter mornings. There’s something about the fresh, crisp air that just feels invigorating.

The winter landscape is also incredibly beautiful. The bare trees are silhouetted against the bright sky and the snow-covered ground sparkles in the sunlight. It’s a peaceful time of year, and I always feel a sense of calm when I’m surrounded by the beauty of nature.

Even though winter can be cold and sometimes inconvenient, I always appreciate the beauty of a winter morning. It’s a time to reflect on the quiet beauty of the world around us and to be grateful for the simple things in life.

3. I bundled up in my warmest jacket and scarf and ventured outside.

The wind was biting, but I didn’t mind. I bundled up in my warmest jacket and scarf and ventured outside.

The fresh air was invigorating, and the winter scenery was beautiful. I walked for a while, taking in the sights and sounds of the season. eventually, I grew cold and headed back inside. I was glad I had taken the time to enjoy the winter morning.

4. The air was biting, but the fresh snow was invigorating.

The air was biting, but the fresh snow was invigorating. I bundled up in my warmest coat and scarf and headed out into the winter morning. The streets were deserted, except for the occasional car.

The snow crunched under my boots as I walked. The sky was a deep blue, and the sun was just peeking over the horizon.

The snow glittered in the light. I took a deep breath of the cold air and felt my lungs fill with the crisp, clean air. Winter is my favorite time of year. I love the cold weather and the snow. There is something magical about a winter morning.

5. I spent the morning walking around the neighborhood

I spent the morning walking around the neighborhood, admiring the winter wonderland. The snow was freshly fallen and untouched, making the world look like a scene from a storybook.

I felt like I was in a dream as I walked through the silent streets. It was a peaceful and calming experience, and I was reluctant to return home.

Conclusion

In “Winter Morning”, the speaker describes the beauty of a winter morning, when the sun is shining and the snow is sparkling. The speaker feels happy and content in this moment.