Category: শখ

bts কি : bts এর পূর্ণরূপ কি ? বিটিএস সদস্যদের নাম সহ বিস্তারিত।

হ্যালো বন্ধুরা। আজকের এই আজিকেলে আমি bts কি, bts এর পূর্ণরূপ কি, বিটিএস সদস্যদের নাম এবং তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। আশা করি আর্টিকেলের শেষ পর্যন্ত পড়বেন।

বর্তমান বিশ্বে বিটিএস একটি খুবই পরিচিত নাম। বিটিএস নিয়ে জানার আগ্রহ অনেকেরই। অনেকেই গুগলে এ বিষয়ে সার্চ করে থাকেন যে বিটিএস এর সদস্য সংখ্যা কতজন বিটিএস কারা বিটিএস কোথায় থাকে ইত্যাদি।

বিশেষ করে বাংলাদেশের কিশোর তরুণ এবং যুবকদের একটা বিরাট অংশ এখন বিটিএসদের ফ্যান। এরকম বাংলাদেশের মতো প্রায় পুরো পৃথিবীতে বিটিএস এর কোটি কোটি ফ্যান রয়েছে।

যেহেতু তাদের জনপ্রিয়তা আকাশ সঙ্গী তাই তাদেরকে নিয়ে জানার আগ্রহ সবার। আপনাদেরকে জানাįনোর জন্য আমি এই আর্টিকেলটি লিখেছি।

আর্টিকেলের প্রথম অংশ বিটিএস ফ্যানদের জন্যে। বিটিএস সম্পর্কে সামগ্রিক তথ্য আমি দিয়েছি।

পরের অংশ বিটিএস এর খারাপ দিক সম্পর্কে। 

বিটিএস সম্পর্কে আমি কি মনোভাব পোষণ করি তা পুরো কন্টেন্ট পড়লেই বুঝবেন।

Bts কি ? বিটিএস কারা ?

Bts কি

বিটিএস হচ্ছে একটি সাউথ কোরিয়ান কে-পপ ব্যান্ড । এছাড়াও বিটিএস কে hip Hop ব্যান্ড বলা যেতে পারে।

বিটিএস এর জনপ্রিয়তা দক্ষিণ কোরিয়া থেকে বর্তমানে সারা বিশ্বের ছড়িয়ে পড়েছে। তাদের ব্যান্ড সঙ্গীতে উপস্থাপনা অনেক চমৎকার।

বিটিএস কে-পপ ব্যান্ডের সদস্য সংখ্যা মাত্র ৭ জন।

এই মাত্র সাত জন সদস্য নিয়ে বয় ‌ব্যান্ড দল টি গঠিত।

বিটিএস এর পূর্ণরূপ কি

bts এর পূর্ণরূপ কি বাংলায়: BTS এর পূর্ণরূপ হচ্ছে Bangtan Boys. একে বাংলায় বাংতান বয়েজ নামে অভিহিত করা হয়। এছাড়াও বিটিএসকে আরো বিভিন্ন নামে ডাকা হয়। নিম্নোক্ত নামগুলোতে ও বিটিএস অনেক পরিচিত।

  • Bangtan Boys ( ব্যাংটন বয়েজ )
  • Bangtan Sonyeondan ( ব্যাংটন সোনিয়োন্দান )
  • Beyond the Scene ( বিয়ন্ড দ্যা সিন )
  • Bulletproof Boy Scouts ( বুলেটপ্রুফ বয় স্কাউটস )

এরপর জেনে নিই , bts কি ভাবে এত জনপ্রিয়তা অর্জন করল এবং বিটিএস এর সঠিক ইতিহাস কি। বিটিএস কিভাবে এত জনপ্রিয় হলো।

বিটিএস এর ইতিহাস , বিটিএস কিভাবে গঠিত হলো ।

bts ব্যান্ড দল দলটি সর্বপ্রথম গঠিত হয় ২০১০ সালে। ২০১০ সাল তৎকালীন বিটিএস দলের প্রধান হিসেবে ছিলেন আরএম (RM) ।

আর.এম বা কিম নাজমুন ছিলেন বিটিএস এর প্রতিষ্ঠাতা এবং পরিকল্পনাকারী।নবগঠিত এই ব্যান্ড দলটির তৎকালীন অবস্থা খুবই নাজুক ছিল । তাদের গানগুলো প্রচারিত না হওয়ার কারণে তারা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন।

২০১০ সালে বিটিএস ব্যান্ডটি গঠিত হওয়ার পর ভিডিও সদস্যরা ২০১০ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত একসাথে ট্রায়াল দিয়েছেন।

ট্রায়াল দেওয়ার সময় বিটিএস এর সদস্যরা প্রতিদিন ১৬ ঘন্টা একসাথে থেকেছেন এবং কঠোর পরিশ্রম করেছেন।

অবশেষে ২০১৩ সালের ১২ ই জুন তাদের প্রথম অ্যালবাম 2 Cool 4 Skool বা 2 কুল 4 স্কুল প্রকাশিত হয়।

এই অ্যালবামটির মাধ্যমে বিটিএস রা কে-পপ ব্যান্ডের জগতে প্রবেশ করে। বিটিএস এর এই অ্যালবামটিতে যে মিউজিক ব্যবহার করা হয়েছিল সেটি ৯০ দশকের একটি হিপ হপ গান থেকে নেওয়া।

এই এলবাম প্রকাশিত হওয়ার পর তাদের আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয় নি।বিটিএস মূলত একটি হিপহপ ব্যান্ড হলেও তাদের গানের মাঝে সাহিত্য, আত্নকেন্দ্রিকতা ফুটে উঠে। তাদের গানের মাধ্যমে মানুষ নিজেকে ভালোবাসার পথ খুজে। (যদিও এটা হাস্যকর)

আরও পড়ুন,

এক নজরে বিটিএস এর কিছু এলবাম

কোরিয়ার স্টুডিও আলবাম

  • Dark and Wild (২০১৪)
  • Wings (২০১৬)
  • Love Yourself: Tear (২০১৮)
  • Map of the soul: 7 (2020)
  • Be (2020)

জাপানি স্টুডিও আলবাম

  • Wake Up (২০১৪)
  • Youth (2016)
  • Fake love (2018)
  • Face Yoursef( 2018)
  • Lights: boy with luv (2019)

বিটিএস এর ট্যুর সমূহ

২০১৩ সালে আত্মপ্রকাশের পর থেকে দক্ষিণ কোরিয়ার কে-পপ ব্যান্ড BTS পাঁচটি কনসার্ট ট্যুর (যার মধ্যে তিনটি বিশ্বব্যাপী), ছয়টি ফ্যান মিটিং ট্যুর, চারটি যৌথ ট্যুর, আটটি showcase এবং ৪১ টি কনসার্টে পারফর্ম করেছে।

২০১৪ সালে BTS-এর প্রথম একক কনসার্ট সফর, The Red Bullet Tour, এশিয়া থেকে শুরু হয়েছিল এবং তারপর অস্ট্রেলিয়া, উত্তর আমেরিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকায় পর্যন্ত এর জনপ্রিয়তা ছড়িয়েছিল, যা ৮০,০০০ দর্শকদের আকর্ষণ করেছিল।

The Red Bullet Tour এর মাঝখানে, BTS জাপানে তার প্রথম কনসার্ট ট্যুরও করেছে, Wake Up: Open Your Eyes Japan Tour।

২০১৫ সালে, BTS শুরু করে দ্য মোস্ট বিউটিফুল মোমেন্ট ইন লাইফ অন স্টেজ ট্যুর, যা এশিয়ার বিভিন্ন শহরে উপস্থাপিত হয়েছে এবং ১৮২,৫০০ টি টিকিট বিক্রি করেছে।

২০১৭ সালে, BTS দ্য উইংস ট্যুর শুরু করেছিল, যা বিশ্বের ১০ টি দেশের ১৭ টি শহরে প্রদর্শন করা হয়েছিলো এবং এটি ৫৫০,০০০ দর্শককে আকর্ষণ করেছিল।


উল্লেক্ষ্য,  আমাদের সকল তথ্য এবং পিকচার,  WikipediaYoutube এবং বিভিন্ন বিশ্বাসযোগ্য ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

বিটিএস এর সদস্য সমূহ

কিম নাজমুন( আর এম)

bts কি

জন্মঃ ১২ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৪ সালে জন্মগ্রহণ করেন।

জন্মস্থানঃ Dongjak District, Seoul, South Korea

পদঃ র‍্যাপার, ড্যান্সার এবং লিডার (BTS)

শিক্ষা-জীবনঃ Apgujeong High School এবং

Global Cyber University

পুরষ্কারঃ Hwagwan Order of Cultural Merit

(২০১৮)

অন্যান্য ডাকনামঃ Gim nam-jun( কোরিয়ান)

Kim Namchun (কোরিয়ান)

কিম নাজমুন বা আর এম বিটিএস এর প্রতিষ্ঠাতা এবং মূল পরিকল্পনাকারী। তার কঠোর পরিশ্রমেই বিটিএস গঠিত হয়েছিলো।

RM ২০১৫ সালে তার প্রথম একক মিক্সটেপ, RM, প্রকাশ করে। ২০১৮ সালে, তিনি তার দ্বিতীয় মিক্সটেপ, Mono প্রকাশ করেন, যেটি US Billboard 200-এ ২৬ নম্বরে উঠেছিল এবং চার্ট ইতিহাসে একজন কোরিয়ান একক সঙ্গীতশিল্পীর সর্বোচ্চ-চার্টিং অ্যালবাম হয়ে ওঠে এটি।

তিনি Wale, Younha, Warren G, Gaeko, Krizz kaliko,  MFBTY, Fall Out Boy, Primary, and Lil Nas X -এর মতো শিল্পীদের সাথেও একসাথে কাজ করেছেন।

পড়তেই থাকুন,  BTS  কি?

Kim Seok-jin (Jin)

Bts কি

 

পদঃ ড্যান্সার, ভোকাল, ভিজ্যুয়াল ( bts)

জন্মঃ ৪ ডিসেম্বর ১৯৯২

জন্মস্থানঃ Anyang, Gyeonggi Province, South Korea

শিক্ষা-জীবনঃ Konkuk University

পুরষ্কারঃ Hwagwan Order of Cultural Merit (২০১৮)

অন্যান্য ডাকনামঃ Kim Sŏkchin (কোরিয়ান)

Gim Seok-jin (কোরিয়ান)

কিম BTS-এর সাথে তিনটি একক ট্র্যাক সহ-লিখেছেন এবং প্রকাশ করেছেন: ২০১৬ সালে “Awake“, ২০১৮ সালে “Epiphany“, এবং ২০২০ সালে “Moon“, যার সবকটিই দক্ষিণ কোরিয়ার Gaon ডিজিটাল চার্টে তালিকাভুক্ত হয়েছে।

২০১৯ সালে, কিম তার প্রথম স্বাধীন গান, ডিজিটাল ট্র্যাক “tonight” প্রকাশ করেন। তার প্রথম একক একক, “দ্য অ্যাস্ট্রোনট” ২৮ অক্টোবর, ২০২২-এ মুক্তি পায়।

গান গাওয়া ছাড়াও, কিম ২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত একাধিক দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গীত অনুষ্ঠানের উপস্থাপক হিসাবে উপস্থিত হয়েছিলেন।

২০১৮ সালে, তিনি তার ব্যান্ডমেটদের সাথে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি কর্তৃক পঞ্চম-শ্রেণির হোয়াগওয়ান অর্ডার অফ কালচারাল মেরিটে পুরস্কৃত হন, তার অবদানের জন্য কোরিয়ান সংস্কৃতি।

Suga (সুগা)

BTS কি

 

পদঃ ড্যান্সার ও লিডার র‍্যাপার (BTS)

জন্মঃ March 9, 1993 (age 29)

জন্মস্থানঃ Buk District, Daegu, South Korea

শিক্ষা-জীবনঃ Apgujeong High School

Global Cyber University

পুরষ্কারঃ Hwagwan Order of Cultural Merit (2018)

অন্যান্য ডাকনামঃ Min Yun-gi (কোরিয়ান)

Min Yunki (কোরিয়ান)

 

সুগা ২০১৩ সালে দক্ষিণ কোরিয়ান বয় ব্যান্ড BTS এর সদস্য হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন। ২০১৬ সালে, তিনি তার প্রথম একক মিক্সটেপ প্রকাশ করেন, August D। ২০১৮ সালে, তিনি ডিজিটাল ক্রয় এবং স্ট্রিমিংয়ের জন্য মিক্সটেপটি পুনরায় প্রকাশ করেন।

বিলবোর্ডের ওয়ার্ল্ড অ্যালবাম চার্টে পুনঃইস্যুটি তিন নম্বরে পৌঁছেছে। ২০২০ সালে, তিনি তার দ্বিতীয় একক মিক্সটেপ, D-2 প্রকাশ করেন। বাণিজ্যিকভাবে, মিক্সটেপটি ইউএস বিলবোর্ড 200-এ ১১ নম্বরে, ইউকে অ্যালবাম চার্টে সাত নম্বরে এবং অস্ট্রেলিয়ার ARIA অ্যালবাম চার্টে দুই নম্বরে রয়েছে। কোরিয়া মিউজিক কপিরাইট অ্যাসোসিয়েশন একজন গীতিকার এবং প্রযোজক হিসেবে সুগাকে 100 টিরও বেশি গানের কৃতিত্ব দিয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সুরানের “wine” যা Gaon Music Chart দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।

পড়তেই থাকুন,  BTS  কি? 


আরোও পড়ুন,


জে-হোপ (J-hop)

 

bts mane ki

পদঃ মেইন ড্যান্সার ও র‍্যাপার (BTS)

জন্মঃ February 18, 1994 (age 28)

জন্মস্থানঃ Buk District, Gwangju, South Korea

শিক্ষা-জীবনঃ Global Cyber University

পুরষ্কারঃ Hwagwan Order of Cultural Merit (2018)

অন্যান্য ডাকনামঃ Jeong Ho-seok (কোরিয়ান)

Chǒng Hosǒk ( কোরিয়ান)

 

জে-হোপ ২০১৮ সালে তার প্রথম একক মিক্সটেপ, Hope World প্রকাশ করে। অ্যালবামটি সমালোচকদের কাছ থেকে ইতিবাচক অভ্যর্থনা পেয়েছিল এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিলবোর্ড 200-এ 38 নম্বরে উঠেছিল, যা তাকে সর্বোচ্চ চার্ট করা একক কোরিয়ান শিল্পী করে তোলে সেই সময়ের র‌্যাঙ্কিং।

তিনি ২০১৯ সালে বিলবোর্ড হট 100-এ প্রবেশকারী প্রথম সদস্য হয়েছিলেন। ২০২২ সালে, জে-হোপ তার প্রথম স্টুডিও অ্যালবাম Jack In The Box প্রকাশ করে।

পড়তেই থাকুন,  BTS  কি?

জিমিন (Jimin)

Bts কি

পদঃ মেইন ড্যান্সার ও লিড ভোকাল( BTS)

জন্মঃ October 13, 1995 (age 27)

জন্মস্থানঃ Geumjeong District, Busan, South Korea

শিক্ষা-জীবনঃKorean Arts High School

Global Cyber University

পুরষ্কারঃ Hwagwan Order of Cultural Merit (2018)

অন্যান্য ডাকনামঃ Pak Chimin (কোরিয়ান)

Bak Ji-min (কোরিয়ান)

 

জিমিন বিটিএস-এর সাথে তিনটি একক ট্র্যাক প্রকাশ করেছে: 2016 সালে “lie”, 2017 সালে “Serendipity” এবং 2020 সালে “Filter“, যার সবকটিই দক্ষিণ কোরিয়ার গাওন ডিজিটাল চার্টে তালিকাভুক্ত হয়েছে। ২০১৮ সালে, তিনি তার প্রথম স্বাধীন গান, ডিজিটাল ট্র্যাক “promise” প্রকাশ করেন, যা তিনি সহ-রচনা করেছিলেন। তিনি ২০২২ TvN Drama Our Bluesএর সাউন্ডট্র্যাকে হাজির হয়েছিলেন এবং Ha sung-woon সাথে একটি যুগল গান “With you” গেয়েছিলেন।

পড়তেই থাকুন, BTS কি? 

V – (Kim Tae-hyung)

 

Bts কি

পদঃ vocal, visual and dancer (BTS)

জন্মঃ December 30, 1995 (age 26)

জন্মস্থানঃSeo District, Daegu, South Korea

শিক্ষা-জীবনঃKorean Arts High School

Global Cyber University

পুরষ্কারঃ Hwagwan Order of Cultural Merit (2018)

অন্যান্য ডাকনামঃ Kim T’aehyŏng (কোরিয়ান)

Gim Tae-hyeong (কোরিয়ান)

Kim Tae-hyung পেশাদারভাবে V নামেও পরিচিত, একজন দক্ষিণ কোরিয়ান গায়ক এবং গীতিকার। তিনি দক্ষিণ কোরিয়ান ছেলে ব্যান্ড BTS-এর একজন সদস্য।

V ব্যান্ডের নামে তিনটি একক ট্র্যাক প্রকাশ করেছে: 2016 সালে “stigma“, 2018 সালে “singularity” এবং 2020 সালে “inner child“, যার সবকটিই দক্ষিণ কোরিয়ার গাওন ডিজিটাল চার্টে তালিকাভুক্ত হয়েছে।

2019 সালে, ভি তার প্রথম স্বাধীন গান, স্ব-রচিত ডিজিটাল ট্র্যাক “scenery” প্রকাশ করে৷

পড়তেই থাকুন,  BTS  কি? 

জাংকুক (jung-kook)

 

bts ki

পদঃ মেইন ভোকাল এবং লিড ড্যান্সার

জন্মঃ September 1, 1997 (age 25)

জন্মস্থানঃBusan, South Korea

শিক্ষা-জীবনঃSchool of Performing Arts Seoul

Global Cyber University

পুরষ্কারঃHwagwan Order of Cultural Merit (2018)

অন্যান্য ডাকনামঃJeon Jeong-guk (কোরিয়ান)

Chŏn Jŏngguk (কোরিয়ান)

 

জাংকুক দক্ষিণ কোরিয়ার ছেলে ব্যান্ড BTS-এর সর্বকনিষ্ঠ সদস্য এবং কণ্ঠশিল্পী।

জাংকুক BTS-এর সাথে তিনটি একক ট্র্যাক প্রকাশ করেছে: ২০১৬ সালে “start“, ২০১৮ সালে “Euphoria” এবং ২০২০ সালে “My Time“, যার সবকটিই দক্ষিণ কোরিয়ার গাওন ডিজিটাল চার্টে তালিকাভুক্ত হয়েছে।

তিনি BTS-ভিত্তিক ওয়েবটুন 7Fates: Chakho-এর জন্য সাউন্ডট্র্যাকও গেয়েছেন, যার শিরোনাম “Stay alive”। ২০২২ সালে, তিনি আমেরিকান গায়ক-গীতিকার Charlie puth এর একক “left and right”-এ প্রদর্শিত হয়েছিলেন, যা ইউএস বিলবোর্ড হট 100-এ ২২ নম্বরে উঠেছিল।


 

“বিটিএস এর সবচেয়ে সুদর্শন পুরুষ হচ্ছেন Jung-kook”

– এরকমটাই বলেছেন জাংকুক ভক্ত সেলিব্রিটি জান্নাতুল ইনতেহা উর্মি।


 

বিটিএস সম্পর্লে ইসলাম কি বলে?

কন্টেন্টের এই অংশ খুবই স্পর্শকাতর। যারা অমুসলিম তারা এই কন্টেন্ট দেখে কষ্ট পেলে মাফ করবেন।

যদি অসঙ্গতিপূর্ণ মনে হয় তাহলে এডিয়ে যাবেন।

সর্বপ্রথম কথা হলো বিটিএস দের কাজ কি? তারা বিভিন্ন ধরনের গান করে এবং ড্যান্স দিয়ে মানুষকে আকর্ষণ করে। যেহেতু তারা পুরুষ স্বভাবতই তারা বেশিরভাগ নারীদেরকে আকৃষ্ট করে।

আপনারা যদি মন দিয়ে তাদের পারফরম্যান্স গুলো দেখেন তাহলে তাদের নৃত্যের মাঝে কিছু স্পষ্ট চিহ্ন দেখতে পাবেন যা তারা তাদের শরীর কিংবা কাপড়ে ব্যবহার করে থাকে।

এমনকি বিশেষ মুহূর্তে তারা বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে শয়তান কিংবা দাজ্জালের গোপন চিহ্ন ব্যবহার করে। আমি নিচে কিছু প্রমাণ দিচ্ছি।

bts কি
শয়তানের চিহ্ন
bts কি
শয়তানের চিহ্ন
bts কি
এক চোখ

উপরের চিত্রগুলোতে আপনারা দেখতে পাচ্ছেন বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি যা তারা লাইফ পারফরমেন্সে কিংবা গানের মাঝে ব্যবহার করেছে।

আপনার কাছে মনে হতে পারে যে এ আর কি এমন ব্যাপার। এত সামান্য চিহ্ন মাত্র।

কিন্তু এ বিষয়টা অনেকটা স্লো পয়জনিং এর মত । আমরা মানুষ তাই এত সহজে এসব বিষয়ে আমরা ভুলে যাই না।

আমরা যখন কোন কিছু দেখি তখন সেটা ঠিক সব সময় উপলব্ধি করতে না পারলেও আমাদের subconscious মাইন্ডে সেটা গেথে যায়।

এভাবে Slow poisoning এর মত এ সকল চিহ্ন আমাদের অন্তরে গেথে যায়।

যখন দাজ্জালের ওইসব চিহ্ন মানুষের অন্তরে গেঁথে যাবে তখন সেসব মানুষকে প্রভাবিত করা খুব সহজ হবে।

এছাড়াও নিচের চিত্রে আপনারা কিছু দৃশ্য দেখতে পাচ্ছেন যেখানে বিটিএস সদস্যরা সমকামিতাকে প্রমোট করতেছে।

BTS কি সমকামি? BTS কি সমকামি?

 

ইসলামের সমকামিতা সম্পূর্ণ হারাম।

বিটিএস সম্পর্কে যদি সত্য জানতে চান, তাহলে নিচের লিংকে ক্লিক করে ভিডিও টা দেখবেন। ইউটিউবে।

ইনশাআল্লাহ, ধারণা পরিবর্তন হয়ে যাবে।

K-pop Industry এর আসল সত্য দেখতে ক্লিক করুন।

বিটিএস সম্পর্কে এক ভাইয়ের কিছু লেখা নিচে উপস্থাপন করলাম।

বিটিএস নিয়ে কিছু কথা:

বর্তমানে একটা টক্সিক ব্যান্ড তৈরি হয়েছে বিটিএস নামে।এই ব্যান্ড টি সমকামিতা প্রমোট করছে সমকামিতা ইসলামে হারাম।

আল্লাহ তায়ালা বলেন!!এবং আমি লূতকে প্রেরণ করেছি। যখন সে স্বীয় সম্প্রদায়কে বলল!!তোমরা কি এমন অশ্লীল কাজ করেছো, যা তোমাদের পূর্বে সারা বিশ্বের কেউ করেনি ? তোমরা কামবশত পুরুষদের সাথে মিলন করেছো নারীদেরকে ছেড়ে। ” (আরাফ ৭:৮১-৮২)

সমকামিতা নিয়ে ২টি হাদিস দেখুন:

১)ইবনু আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ

তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ তোমরা যে মানুষকে লূত সম্প্রদায়ের কুকর্মে (সমকামিতায়) নিয়োজিত পাবে!!সেই কুকর্মকারীকে এবং যার সাথে কুকর্ম করা হয়েছে তাকে মেরে ফেলবে!!

সহীহ্, ইবনু মা-জাহ (৩৫৬১)

২)মালিক (র)- থেকে বর্ণিতঃ

মালিক (র) কে ইবনু শিহাবকে জিজ্ঞেস করলেন, পুরুষে পুরুষে সমকামিতা করলে তার শাস্তি কি ?

তিনি বললেন, তাকেও প্রস্তরাঘাত করতে হবে,  সে বিবাহিত হোক বা অবিবাহিত।

(হাদীসটি ইমাম মালিক এককভাবে বর্ণনা করেছেন!!এখানে আংশিক তুলে ধরা হলো)

মুয়াত্তা ইমাম মালিক, হাদিস নং ১৫১৮

এখানে একটি সংগৃহীত প্রমাণ সহ আছে যে খ্রিস্ট ও ইহুদি ধর্মে সমকামিতা নিষিদ্ধ!!

একজন পুরুষের অন্য একজন পুরুষের সঙ্গে স্ত্রীলোকের ন্যায় যৌন সম্পর্ক অবশ্যই রাখতে পারবে না!!

(সমকামিতা)হলো ভয়ঙ্কর পাপ|(লেবীয় পুস্তক 18:22)

“যদি কোন পুরুষের অন্য এক পুরুষের সঙ্গে একজন স্ত্রীলোকের মত যৌন সম্পর্ক থাকে

তবে এই দুজন পুরুষ এক ভয়ঙ্কর পাপ কাজে লিপ্ত!!তাদের মেরে ফেলাই তাদের শাস্তি!তারা তাদের নিজেদের মৃত্যুর জন্য দায়ী|  (লেবীয় পুস্তক 20:13)

এখন কথা হচ্ছে এতো কিছু বললাম কেনো?

বলার কারণ এই বিটিএস এর বিশাল সমর্থক গোষ্ঠী আছে বাংলাদেশে!!

এর মধ্যে অধিকাংশই তরুণ তরুণী এবং এই সাপোর্টারদের মধ্যে মুসলিমদের সংখ্যা নেহাত কম নয়!!

সমকামিতাকে পজিটিভ হিসেবে উপস্থাপন করছে বিটিএস!!

মুসলিম তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এই চিন্তা প্রবেশ করিয়ে দিচ্ছে তারা।

অনেক মুসলিমদের মধ্যে এই চিন্তা চেতনা প্রবেশ করায় তারা সেদিকে ধাবিত হচ্ছে।

আল্লাহ তায়ালা যুব সমাজকে নব আবির্ভূত ফেতনা থেকে হেফাজত করুক (আমিন)

পড়তেই থাকুন, BTS কি? 

bts কি মুসলিম ?

কোনো বিটিএস সদস্য মুসলিম নয়। তাদের বেশীরভাগের ধর্ম কেউ জানে না

বিটিএস সদস্যদের বারবার প্রশ্ন করা হলেও তারা কেউ উত্তর দিতে চায় না।।

শুধু মাত্র V প্রকাশ করেছেন তিনি Atheist

নিচে কিছু স্ক্রিনশট দেওয়া হলো।

bts কি মুসলিম bts কি মুসলিম bts কি মুসলিম

 

বিটিএস সম্পর্কে কিছু সাধারণ প্রশ্ন।

 

bts কি বাংলাদেশে আসবে

BTS বাংলাদেশে আসার কোনো পরিস্থিতি নেই।

যদি আসতেও চায়, বাংলাদেশে ব্যাপক আন্দোলন চালু করবে, বলেছেন মাওলানা আব্বাসী হুজুর।

তিনি স্পষ্টই বলে দিয়েছেন যে, ওরা আসতে চাইলে ওদের এয়ারপোর্টে থেকে বিদায় করা হবে।

bts কি ছেলে না মেয়ে ?

শারিরীক ভাবে তারা ছেলে হলেও পোশক-পরিচ্ছেদের সেটার বহিঃপ্রকাশ পাওয়া যায় না।

তারা সমকামী, এ ব্যপারেও নির্দিষ্ট প্রমাণ নেই, কিন্তু তারা সমকামীতা প্রোমট করে।

bts কি ইসলাম বিরোধী

স্পষ্টতই তারা ইসলাম সম্পর্রকে পজিটিভ কথা বললেও তারা ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ড তাদের গানের মধ্যে রেখেছে।

আপনারা যদি অন্তরের চোখ দিয়ে দেখেন তাহলে সব বুঝতে পাবেন।

bts সম্পর্কে আমার মতবাদ,

বিটিএস একটিকে পপ ব্যান্ড দল। আমি আপনি সবাই জানি যে ইসলামে গান শোনা দেখা চর্চা করা সবই স্পষ্ট হারাম। তাই একজন প্র্যাকটিসিং মুসলিম হিসেবে আমার আপনার কখনো ই গানের প্রতি ঝুঁকা উচিত হবে না।

আর যারা গানের প্রতি একদম আসক্ত কিংবা বিটিএস এর প্রতি একদম আসক্ত তাদের ক্ষেত্রে আমার একটা থিওরি আছে।

আপনারা গান শোনা সামান্য পরিমাণে কমিয়ে দিন এবং বিটিএস এর গানগুলোকে অডিও করে শুনুন।

এভাবে প্রতি সপ্তাহে একটি করে গান শোনা কমাতে কমাতে শূন্যের পর্যায়ে নিয়ে আসবেন।

যেহেতু তাদের ভিডিওগুলো মানুষকে খুব আকর্ষণ করে তাই গানগুলো ভিডিও থেকে অডিও করে শুনবেন।

এরপর আস্তে আস্তে কমাতে কমাতে এক পর্যায়ে গানগুলো বাদ দিয়ে দিবেন।

আর গান শোনার সময় আপনি যে আনন্দ সুখ ইত্যাদি উপলব্ধি করেন তা শয়তানের পক্ষ থেকে শুধুমাত্র উত্তেজনা ছাড়া কিছু নয়।

গান সম্পর্কে ইসলামের মতবাদ এবং ইসলামিক স্কলারগণের বিশ্লেষণ যদি শুনতে চান তাহলে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করে ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখবেন। আমি এখানে ভিডিও প্রমোট করতে আসিনি, আপনাদেরকে সত্য জানাতে এসেছি।

আজকে এ পর্যন্তই, ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন ।আসসালামু আলাইকুম।

আরো পড়ুন,

বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

বিবাহ মানুষের জীবনের জন্য একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কিন্তু বিবাহের পর আরো একটি কাজ দম্পতিটিকে রোমাঞ্চকর করে তুলতে পারে সেটি হচ্ছে বিবাহ বার্ষিকী অনুষ্ঠান। আপনি যদি সম্পর্কে আরো রোমান্টিক আনতে চান তাহলে আপনার প্রিয়কে বিবাহ বার্ষিকীর কথা স্মরণ করিয়ে দিন। দেখবেন এতে সে অনেক খুশী হবে। আজকের পোষ্টে কিছু বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস তুলে ধরব।

আমরা জানি মানুষের বিবাহের দিন অত্যন্ত রোমাঞ্চকর হয়ে থাকে। এই দিনে কোনো ব্যক্তি তার সর্বোচ্চ সৌন্দর্যতা প্রকাশ করার চেষ্টা করে। মেয়েরা পার্লারে যায় তার স্বামীর জন্য নিজেকে উজার করে সাজাতে। বিয়ের সকল কাজকর্ম শেষে অবশেষে আশে বিয়ের রাত। বিয়ের প্রথম রাতের কথা কোনো মেয়ে কিংবা ছেলেই ভুলতে অয়ারে না। এটা তাদের জীবনে ঘটে যাওয়া রোমান্টিক মূহুর্তগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দামি।

আপনি যদি কোনো মতে তাকে এই রোমান্টিক মূহুর্তোগুলোর কথা স্মরণ করে দিতে পারেন তাহলেই কেল্লা ফতে। আর বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস আপনার প্রিয়কে খুশীর চরম স্তরে পৌছে দেবে।

বিবাহ বার্ষিকী শুভেচ্ছা ইংরেজিতে না দেয়াই ভালো। আমরা বাঙালি যেহেতু তাই বাংলা ভাষা ব্যবহার করতে হয়।না হয় বার্ষিকীর দিনে শুধুমাত্র একদিন বিবাহ স্ট্যাটাস বাংলা দিয়ে দিলেন। এতে কোনো সমস্যা হবেনা আশা করি। কেনোনা আপনি আপনার প্রিয়কে চিরোকাল ইংলিশ দিয়ে আই লাভ ইউ বলেই গেলেন। বার্ষিকীর দিনে শুদ্ধ বাংলার ব্যবহারও তাকে ইমপ্রেস করার করপণ হতে পারে।

নিচে কিছু রোমান্টিক বিবাহ বার্ষিকী স্ট্যাটাস এবং ফানি বিবাহ বার্ষিকী স্ট্যাটাস তুলে ধরা হলো।

 

স্বামী-স্ত্রীর রোমান্টিক বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

ভালোবাশা যখন সত্য হয় তখন এর কোনো শেষ থাকে না। আমাদের ভালোবাসাও সত্য। আশা করি আমাদের এই ভালোবাসা চিরকাল বেচে থাকবে। অনেক ভালোবাসি তোমায়। শুভ বিবাহ বার্ষিকী।

 

  • বউ তুমি আমার জীবনের সবচেয়ে রোমান্টিক ব্যক্তি।তুমি আমার হাশি কান্নার সাথী। তোমাকে ছাড়া আমার হাসির মূহুর্ত গুলোও যেনো অপূর্ণ থেকে যায়।অনেক ভালোবাসি তোমায়।শুভ বিবাহ বার্ষিকী।

 

  • আমি আপনাকে ভালবাসতে চাই, আপনাকে আদর করতে চাই, আপনার যত্ন নিতে চাই এবং আপনাকে সর্বকালের জন্য সবচেয়ে সুখী ব্যক্তি হিসাবে গড়ে তুলতে চাই। শুভ বিবাহ বার্ষিকী

 

  • তুমি পৃথিবীর ব্যক্তি যাকে আমি সারাজীবন আমার পাশে চাই। প্রতিদিন এবং প্রতি রাতে চাই । আমি তোমাকে ভালোবাসি, প্রিয়তমা। শুভ বিবাহ বার্ষিকী!

 

  • আমি বিশ্বাস করি সবকিছু একটি কারণে ঘটে থাকে কারণ এটি আমাকে তোমার কাছে নিয়ে গেছে। আমি তোমাকে অনেক বেশী ভালোবাসি, শুভ বিবাহ বার্ষিকী।
  • তোমাকে আমার পাশে পেয়ে আমাকে বিশ্বের সবচেয়ে সুখী, সবচেয়ে কৃতজ্ঞ এবং ভাগ্যবান ব্যক্তি মনে করি। আমার আত্মার সাথীকে শুভ বিবাহ বার্ষিকী।

 

 

  • তুমি কতটা সুন্দর, তুমি আমাকে কতটা হাসাও এবং তুমি আমকে কতটা বুঝো তা আমি আপনাকে কখনই বলে বুঝাতে পারব না । আমার এক সত্যিকারের ভালবাসা তুমি।শুভ বিবাহ বার্ষিকী প্রিয়।

 

  • এই পৃথিবীতে আপনার চেয়ে বড় বিশ্বাযোগ্য ব্যক্তি আমার কাছে কেউই নেই।আমার জীবনের সকল সুখ- দুঃখের সাথী তুমি। শুভ বিবাহ বার্ষিকী প্রিয়।

 

  • একসাথে কাটানো আরেকটি বছরের জন্য অভিনন্দন। আগামী বছরের জন্য আপনাকে সবচেয়ে বেশি ভালবাসা, হাসি এবং সুখ কামনা করছি। শুভ বিবাহ বার্ষিকী প্রিয়।

 

  • প্রিয় তুমি আমার জীবনের সব।তোমি ছাড়া এক পা সামনে গেলে যেনো এক মাইল মনে হয়।তোমাকে আমি কখনো হারাতে চাই না। শুভ বিবাহ বার্ষিকী।

আপনার এফেয়ার থাকা অবস্থায় বিবাহ হতে পারে। কিন্তু এখন স্বামীকে অনেক ভালোবাসেন। তাহলে নিচের স্ট্যাটাস টি ব্যবহার করতে পারেন।

 

  • আমি যেদিন তোমাকে বিয়ে করেছি তার চেয়ে বেশি তোমাকে ভালোবাসা সম্ভব বলে মনে করিনি, কিন্তু কোনো না কোনোভাবে আমার ভালোবাসা বেড়েই চলেছে। আমি তোমাকে আজ এবং সবসময় ভালবাসি।শুভ বিবাহ বার্ষিকী প্রিয়।

 

বাবা-মার বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

  • সমস্ত কিছু ভালবাসার সাথে বৃদ্ধি পায় এবং আমাদের পরিবারের চেয়ে এর চেয়ে ভাল প্রমাণ আর কিছুই নেই। তোমাকে ভালোবাসি মা আর বাবা।

 

  • যে দম্পতি আমাকে সত্যিকারের ভালবাসার অর্থ শিখিয়েছে তাদের জন্য একটি শুভ বার্ষিকী কামনা করছি।

 

  • আশা করি একদিন তোমার মত ভালোবাসা পাবো। শুভ বিবাহ বার্ষিকী মা এবং বাবা!

 

  • জীবনের উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে আপনার একতা আমাকে দলগত কাজ শিখিয়েছে, একে অপরের অভ্যাসের জন্য আপনার সহনশীলতা আমাকে ধৈর্য শিখিয়েছে এবং একে অপরের সংকটের সময় আপনার সমর্থন আমাকে একাত্মতা শিখিয়েছে। সেই দম্পতিকে শুভ বার্ষিকী যিনি আমাকে সবকিছু শিখিয়েছেন যা আমি জানি! শুভ বিবাহ বার্ষিকী বাবা এবং মা।

 

  • আশা করি যে আপনি কিছু বছর আগে আমাকে যেমন ভালোবেসেছিলেন আজও ততটাই ভালোবাসেন। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বাবা-মা!

 

  • জীবনের ঝড়কে একসাথে মোকাবেলা করতে এবং বছর পরেও হাসতে দু’জন খুব বিশেষ লোক লাগে। আর আমার জীবনে বাবা মা ই এই অভাব পূরণ করে। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বাবা মা!

 

বন্ধুর বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

বন্ধুর বিবাহ বার্ষিকীতে উইস করা আরেকটি চমৎকার বিষয়। এটাই সময় প্রামাণ করার যে আপনি বন্ধুকে কতটা ভালোবাসেন।আপনি বিভিন্ন ভাবে এই বিবাহ বার্ষিকী উদ্যাপন করতে পারেন। যেমম তার কোনো প্রিয় বস্তু উপহার দিয়ে কিংবা দাওয়াতের আয়জন করে। কিন্তু এক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে নিবে আপনার বলা কথা গুলো। আপনার সুন্দর কথা গুলো তার বন্ধুত্বের কথাকে পুরোপুরু স্মরণ করে দিতে পারে।নিচে কিছু স্ট্যাটাস তুলে ধরা হলো

  • তোর জীবনের যাত্রায় কেবলমাত্র সবচেয়ে সুন্দর চিন্তাভাবনা, স্বপ্ন এবং আকাঙ্ক্ষাগুলি তোর সাথে থাকুক। আমি সাথে আছি বন্ধু। শুভ বিবাহ বার্ষিকী।

 

  • বন্ধু তোর দাম্পত্য জীবনের প্রথম বছরে অভিনন্দন, এবং শুভ হোক তোর সামনের পথ চলা। দয়া করি তোর জন্যে। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বন্ধ।

 

  •  অনেক বছর আগে থেকে আজ পর্যন্ত সবাই আমাকে না বুঝলেও তোরা দুজন ঠিকই বুঝেছিলি। আমাকে সবসময় সাপোররট করেছিলি। অন্যরা সবাই আমকে না বল্লেও দিনের শেষে তোরা দুজনেই হ্যাঁ বলেছিলে! এমন একটি বিশেষ দম্পতির জন্য রইল দোয়া ও ভালোবাসা। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বন্ধু।

 

  • তোদের বন্ধন চিরকাল স্থায়ী হোক এবং তোদের ভালবাসা হোক একটি কলম যা শুধুমাত্র তোদের গল্প লিখবে। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বন্ধু।তোমরা দুজন সেরা।

 

  • কথায় আছে যে পরিবার চিরকাল। সুতরাং এর অর্থ হল তোরা দুজন চিরকাল একসাথে আছিস কারণ তোদের ভালবাসা এমন একটি বন্ধন তৈরি করেছে যা তোদেরকে একটি সুখী পরিবারে পরিণত করেছে। আল্লাহ তোদের এই ভালোভাসাকে চিরকাল সমুন্নত রাখুক। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বন্ধু।

 

  • যারা তোকে চেনে তাদের জন্য তুই সত্যিই একটি অনুপ্রেরণা, এবং আজ আমরা সবাই তোর উত্সর্গ এবং সাফল্যকে অভিনন্দন জানাই। শুভ বিবাহ বার্ষিকী আমার বন্ধু।

 

  • শুভ ১ম বিবাহ বার্ষিকী বন্ধু! তোর বিশ্বাস এবং ভালবাসা ভাল এবং খারাপ উভয় সময়ে প্রতি বছর পেরিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকুক!

 

  • তোদের দুজনকে দেখা খুবই আনন্দদায়ক এবং অনুপ্রেরণাদায়ক। তোরা একটি অনুকরণীয় দম্পতি যা আমি সাক্ষাত করতে এবং জানতে পেরে সম্মানিত বোধ করি। শুভ বিবাহ বার্ষিকী বন্ধু।

 

 

  • বিয়ে একটি যুদ্ধক্ষেত্রের চেয়ে কম নয়, তোরা যুদ্ধের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছিস , এবং তোরা দুজন এটি সত্যিই ভাল করছিস ! শুভ বিবাহ বার্ষিকী , আমার প্রিয় দম্পতি!

 

বড় ভাই এর জন্য বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস

আমি আশা করি আপনার বিবাহ বন্ধন আগামী বছরগুলিতে আরও শক্তিশালী এবং আরও সুখী হোক। আপনারা সবসময়ের মতো একে অপরের সাথে লেগে থাকুন। শুভ বিবাহ বার্ষিকী, ভাই।

  • আপনারা দুজনে একসাথে জীবনের অর্জন গুলো উপভোগ করুন এবং প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে একসাথে লড়াই করুন অনেক আত্মবিশ্বাসের সাথে!! সর্বদা একে অপরের শক্তি হোন! শুভ বার্ষিকী বড় ভাই!!

 

  • আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি যে আপনি আমার ভাই। ভাই এবং বন্ধু হিসাবে আপনি আমার জন্য অনেক কিছু করেছেন। শুভ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা প্রিয় ভাই।

 

  • বিশ্বের সবচেয়ে নিখুঁত দম্পতিকে শুভ বিবাহ বার্ষিকী। আমাদের অনেকের কাছেই আপনি অনুপ্রেরণা, ভাই।

 

  • প্রিয় ভাই, শুভ বিবাহ বার্ষিকী এবং অনেক অনেক শুভেচ্ছা। পুরো মহাবিশ্বে তোমরা দুজন আমার সবচেয়ে প্রিয় মানুষ। দয়া করি তোমাদের জন্য।

 

 

  • তোদের বিবাহ বার্ষিকীর দিনটি সর্বদা আনন্দে আপনার হৃদয়কে সন্তুষ্ট করুক এবং তোদের আগের জীবনকালের সুখী স্মৃতি একসাথে কাটুক। শুভ বার্ষিকী, ভাইয়া এবং ভাবী।

 

  • আমি দেশের সেরা দম্পতির কাছে এই কামনা করছি যে অদূর ভবিষ্যতে তোরা বিশ্বের সেরা হিসাবে বিবেচিত হবি । শুভ বিবাহ বার্ষিকী, ভাইয়া ও ভাবী!
  • আমার দেখা সবচেয়ে সুন্দর দম্পতিকে শুভ বার্ষিকী। শুভ বিবাহ বার্ষিকী ভাইয়া এবং ভাবী!

এই ছিলো আমার কাছে কিছু বিবাহ বার্ষিকী ফেসবুক স্ট্যাটাস। ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ।

আরোও পরতে এখানে ক্লিক করুন।